অপ্রচলিত শক্তি বিকাশের কারণগুলি আলোচনা করো।

অপ্রচলিত শক্তি বিকাশের কারণগুলি আলোচনা করো: বিদ্যুৎ শক্তি উৎপাদনের জন্য যে সমস্ত শক্তি উৎসের ব্যবহার এখনও পর্যন্ত ব্যাপকভাবে প্রচলিত হয়নি, সেই সমস্ত শক্তি উৎস থেকে যে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়, তাকে অপ্রচলিত শক্তি বলে। বর্তমানে ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ শক্তি সংকটের মুখোমুখি। তাই ভবিষ্যতে শক্তি সরবরাহ অক্ষুন্ন রাখার জন্য তাপবিদ্যুৎ, জলবিদ্যুৎ, পারমাণবিক বিদ্যুৎ ইত্যাদি প্রচলিত শক্তির পরিবর্তে সৌরবিদ্যুৎ, বায়ু বিদ্যুৎ, ভূতাপ বিদ্যুৎ ইত্যাদি অপ্রচলিত শক্তির উপর গুরুত্ব আরোপ করার প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে। নিম্নে ভারতে অপ্রচলিত শক্তি ব্যবহারের ওপর অধিক গুরুত্ব আরোপ করার কারণ/অপ্রচলিত শক্তি বিকাশের কারণ/অন্যান্য শক্তি সম্পদের তুলনায় অপ্রচলিত শক্তি ব্যবহারের সুবিধাগুলি আলোচনা করা হল-

১)দ্রুত হ্রাসমান খনিজ শক্তি: প্রচলিত শক্তি সম্পদের ক্রমাগত ব্যবহারের ফলে ভারতসহ বিশ্বের বহু দেশে কয়লা, খনিজ তেল এবং বিভিন্ন আনবিক খনিজ দ্রুত নিঃশেষিত হয়ে যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে এর বিকল্প হিসাবে অফুরন্ত সম্পদ রূপে অপ্রচলিত শক্তির ব্যবহারের ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হচ্ছে।

২)স্বল্প উৎপাদন ব্যয়: অপ্রচলিত শক্তির উৎসের সাহায্যে বিদ্যুৎক্ষেত্র গড়ে তোলার প্রাথমিক ব্যয় বেশি হলেও পৌনঃপুনিক ব্যয় তেমন হয় না। ফলে সামগ্রিকভাবে অপ্রচলিত শক্তির মোট উৎপাদন ব্যয় কম হয়।

৩)সুলভ প্রাপ্তি: প্রচলিত শক্তি সম্পদের বন্টন কয়েকটি অঞ্চলের মধ্যে সীমাবদ্ধ। এছাড়া কোন দুর্গম অঞ্চলে ওই শক্তি সম্পদগুলিকে প্রেরন করাও অসুবিধাজনক।কিন্তু অপ্রচলিত শক্তির উৎসগুলি পৃথিবীর প্রায় সর্বত্রই পাওয়া যায় বলে বিভিন্ন দুর্গম ও প্রত্যন্ত অঞ্চলেও ছোট ছোট বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপন করে বিদ্যুতের যোগান দেওয়া যায়।

৪)ক্রমবর্ধমান শক্তির চাহিদা: বর্তমানে ভারত সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দ্রুত নগরায়ন ও শিল্পায়নের ফলে বিদ্যুৎ তথা শক্তির চাহিদা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।এই পরিস্থিতিতে অতিরিক্ত বিদ্যুতের চাহিদা মেটানোর উদ্দেশ্যে অপ্রচলিত শক্তির উৎসের উপর গুরুত্ব আরোপ করা হচ্ছে।

৫)স্বল্প বাজারদর: অপ্রচলিত শক্তির উৎসগুলি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের ব্যয় কম হয় বলে এই বিদ্যুতের ইউনিট প্রতি দাম অপেক্ষাকৃত কম।ফলে অপ্রচলিত শক্তি ব্যবহারের প্রতি মানুষের আগ্রহ বৃদ্ধি পায়।

৬)স্বল্প পরিবেশ দূষণ: প্রচলিত শক্তির উৎসগুলি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সময় বিভিন্ন রাসায়নিক ও বর্জ্য পদার্থের প্রভাবে পরিবেশ দূষিত হয়।কিন্তু অপ্রচলিত শক্তির উৎস থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সময় কোন বর্জ্য পদার্থ বা রাসায়নিক পদার্থ নির্গত হয় না বলে পরিবেশ দূষণমুক্ত থাকে বা স্বল্প পরিবেশ দূষণ হয়।

Leave a Comment