BOD ও COD এর মধ্যে পার্থক্য

BOD ও COD এর মধ্যে পার্থক্য: জলদূষণের সাথে সম্পর্কীত দুটি গুরুত্বপূর্ন ধারণা হল BOD ও COD। এই দুটি পরিমাপকের দ্বারা বর্জ্য জলের অক্সিজেন চাহিদা শক্তিকে পরিমাপ করা হয়ে থাকে। BOD ও COD এর মধ্যে পার্থক্য গুলি হল – 

জৈব অক্সিজেন চাহিদা বা BOD বলতে জলে উপস্থিত জৈব পদার্থ যেমন জলজ ব্যাকটেরিয়া ও অন্যান্য অনুজীবের জলে দ্রবীভূত অক্সিজেনের চাহিদা বা ক্রমহ্রাসমান অবস্থাকে বোঝানো হয়। এটি ‘মিলিগ্রাম প্রতি লিটার’ এককে প্রকাশ করা হয়। জল বিভিন্ন প্রকারের জৈব পদার্থ দ্বারা দূষিত হলে সেই দূষিত জৈব পদার্থকে রাসায়নিক ভাবে বিয়োজন করার জন্য জলে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া ও অনুজীবের সংখ্যাও ক্রমশ বাড়তে থাকে। এই বিপুল পরিমান ব্যাকটেরিয়ার দ্বারা জলে দ্রবীভূত অক্সিজেনের শোষণকে জৈব অক্সিজেন চাহিদা বলে।

জলে উপস্থিত কিছু জটিল জৈব যৌগকে রাসায়নিক প্রক্রিকায় বিয়োজনের জন্য প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের চাহিদাকে রাসায়নক অক্সিজেন চাহিদা বা COD বলা হয়। এটি মিলিগ্রাম প্রতি লিটার এককে প্রকাশ করা হয়। 

প্রথম

BOD এর পুরো নাম Biological Oxygen Demand 

COD এর পুরো নাম Chemical Oxygen Demand

দ্বিতীয় 

BOD জলে উপস্থিত জৈব পদার্থের বিয়োজনের জন্য জৈব বিয়োজকের দ্বারা প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের পরিমানকে নির্দেশ করে।  

COD রাসায়নিক বিক্রিয়ার দ্বারা বর্জ্য জলে উপস্থিত জৈব ও অজৈব পদার্থ গুলিকে পচানোর জন্য প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের পরিমানকে নির্দেশ করে। 

তৃতীয় 

BOD একটি  জৈবিক প্রক্রিয়া ।

COD একটি রাসায়নিক প্রক্রিয়া ।

চতুর্থ 

BOD বায়বীয় জীবের দ্বারা সম্পন্ন হয় ।

COD রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে কাজ করে। 

পঞ্চম 

২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস উষ্ণতায় ৫ দিনের জন্য রাখা নমুনার মাধ্যমে জলের BOD পরিমাপ করা হয়। এর মাধ্যমে জলে দ্রবীভূত কী পরিমান অক্সিজেন বায়বীয় বিয়োজকের দ্বারা গৃহীত হয়েছে তা বোঝা যায়। 

জলের নমুনাতে একটি শক্তিশালী জারক পদার্থকে ফুটন্ত সালফিউরিক অ্যাসিডের সঙ্গে একটি নির্দিষ্ট  সময়ের জন্য একটি নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় রাখার মাধ্যমে COD পরিমাপ করা হয়। 

ষষ্ট 

BOD এর মান COD এর থেকে কম হয়। 

COD এর মান সব সময় BOD এর থেকে বেশি হয়। 

সপ্তম 

BOD  জৈব পদার্থ দ্বারা জলদূষণ পরিমাপ করে। 

জৈব ও অজৈব পদার্থের রাসায়নিক বিক্রিয়ার জন্য প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের চাহিদাকে বোঝায়। 

Leave a Comment