শায়িত ভাঁজ বা রিকাম্বেন্ট ভাঁজ এবং ন্যাপ ভাঁজের পার্থক্য লেখো।

শায়িত ভাঁজ বা রিকাম্বেন্ট ভাঁজ এবং ন্যাপ ভাঁজের পার্থক্য লেখো।

শায়িত ভাঁজ বা রিকাম্বেন্ট ভাঁজ এবং ন্যাপ ভাঁজের পার্থক্যগুলি হলো নিম্নরূপ:-

1)সংজ্ঞা: শিলাস্তরে করে অনুভূমির চাপ বৃদ্ধি পেলে আবৃত ভাঁজের একটি বাহু যখন অপর বাহুটির ওপর অনুভূমিক ভাবে অবস্থান করে, তখন তাকে শায়িত ভাঁজ বা রিকাম্বেন্ট ভাঁজ বলে। অন্যদিকে, কোন উদঘট্ট অথবা রিকাম্বেন্ট ভাঁজের ওপরের বাহুটি যখন সংঘট্ট তল বরাবর নিচের বাহুটি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে সামনের দিকে সরে অন্য কোন শিলার উপর অবস্থান করে, তখন তাকে ন্যাপ ভাঁজ বলে।

2)সৃষ্টি: আবৃত ভাঁজ থেকে শায়িত ভাঁজ বা রিকাম্বেন্ট ভাঁজ সৃষ্টি হয়। অন্যদিকে, রিকাম্বেন্ট অথবা উদঘট্ট ভাঁজ থেকে ন্যাপ ভাঁজ সৃষ্টি হয়।

3)প্রকৃতি: শায়িত ভাঁজ বা রিকাম্বেন্ট ভাঁজের একটি বাহু অপর বাহুটির ওপর শায়িত অবস্থায় থাকে‌। অন্যদিকে, ন্যাপ ভাঁজের একটি বাহু অপর বাহু থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে সামনের দিকে সরে যায় এবং অন্য শিলার উপর অবস্থান করে।

4)বাহুর অবস্থান: শায়িত ভাঁজ বা রিকাম্বেন্ট ভাঁজের বাহু দুটি একে অন্যের উপর শায়িত অবস্থায় থাকলেও কখনো কখনো একটি বাহু অন্য বাহুটির ওপর উঠে যায়। অন্যদিকে, অত্যধিক পার্শ্বচাপের কারণে ন্যাপ ভাঁজের একটি বাহু অন্য বাহুটির ওপর শায়িত অবস্থায় থাকে না, একটি বাহু অন্য বাহুটি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে দূরে অবস্থান করে।

5)অনুভূমির চাপের তীব্রতা: শায়িত ভাঁজ বা রিকাম্বেন্ট ভাঁজ সৃষ্টিকারী পার্শ্বচাপের বা অনুভূমির চাপের তীব্রতা ন্যাপ ভাঁজের তুলনায় কম হয়। অন্যদিকে, ন্যাপ ভাঁজ সৃষ্টিকারী পার্শ্বচাপের বা অনুভূমির চাপের তীব্রতা শায়িত ভাঁজ বা রিকাম্বেন্ট ভাঁজের তুলনায় বেশি হয়।

6)অক্ষতলের সাথে অক্ষের কৌণিক অবস্থান: শায়িত ভাঁজ বা রিকাম্বেন্ট ভাঁজে অক্ষতলের সাথে অক্ষ 10° কম কোণে অবস্থান করে। অন্যদিকে, ন্যাপ ভাঁজে অক্ষতলের সঙ্গে অক্ষের কৌণিক অবস্থান লক্ষ্য করা যায় না।

Leave a Comment