ক্যাটাবেটিক বায়ু ও অ্যানাবেটিক বায়ু কাকে বলে? ক্যাটাবেটিক ও অ্যানাবেটিক বায়ুর মধ্যে পার্থক্য।

ক্যাটাবেটিক বায়ু ও অ্যানাবেটিক বায়ু কাকে বলে? ক্যাটাবেটিক ও অ্যানাবেটিক বায়ুর মধ্যে পার্থক্য।

ক্যাটাবেটিক বায়ু: পার্বত্য অঞ্চলে রাত্রিবেলা আকাশ মেঘমুক্ত থাকলে শীতল পার্বত্য ঢালের উপরি অংশের বায়ু দ্রুত তাপ বিকিরণ করে শীতল ও ভারী হয়ে পড়ে এবং পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ শক্তির প্রভাবে তা পর্বতের ঢালে বরাবর উপত্যকায় নেমে আসে। পার্বত্য অঞ্চলের এইরূপ রাত্রিকালীন নিম্নমুখী শীতল বায়ু প্রবাহকে ক্যাটাবেটিক বায়ু বলে।

অ্যানাবেটিক বায়ু: উচ্চ পার্বত্য অঞ্চলে দিনের বেলায় সূর্যকিরণে পার্বত্য উপত্যকা উত্তপ্ত হওয়ার ফলে বায়ু উষ্ণ ও হালকা হয়ে পরিচলন পদ্ধতিতে পর্বতের ঢালে বরাবর উপরের দিকে উঠতে থাকে। এইরূপ ঊর্ধ্বগামী উষ্ণ ও হালকা বায়ুকে উপত্যকা বায়ু বা অ্যানাবেটিক বায়ু বলে।

উদাহরণ: হিমাচল প্রদেশের কুলু উপত্যাকায় ধরনের বায়ু প্রবাহিত হয়।

ক্যাটাবেটিক ও অ্যানাবেটিক বায়ুর মধ্যে পার্থক্য

সংজ্ঞাক্যাটাবেটিক বায়ুঅ্যানাবেটিক বায়ু
সংজ্ঞারাতের বেলা পর্বতের উচ্চ অংশের বায়ু তাপ বিকিরণ করে শীতল ও ভারী হয়ে পর্বতের ঢাল বরাবর নিচে নামতে থাকলে তাকে ক্যাটাবেটিক বায়ু বলে।দিনের বেলা পর্বতের নিম্ন উপত্যকার বায়ু উষ্ণ ও হালকা হয়ে ঊর্ধ্বমুখী হলে তাকে অ্যানাবেটিক বায়ু বলে।
অপর নামপর্বতের ঊর্ধ্বাংশ থেকে প্রবাহিত হওয়ায় ক্যাটাবেটিক বায়ু পার্বত্য বায়ু (Mountain breeze) নামেও পরিচিত।অ্যানাবেটিক বায়ু পার্বত্য উপত্যকা থেকে প্রবাহিত হওয়ায় একে উপত্যকা বায়ুও (Valley breeze) বলে।
স্থানীয় আবহাওয়ার উপর প্রভাবক্যাটাবেটিক বায়ুর প্রবাহে উপত্যকা অঞ্চলে ঘন কুয়াশার সৃষ্টি হয়।অ্যানাবেটিক বায়ুর প্রভাবে পাহাড়ি উপত্যকায় বিকেলের দিকে বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টিপাত হয়।
বায়ুর বৈশিষ্ট্যক্যাটাবেটিক বায়ু শীতল, শুষ্ক ও ভারী হয়।অ্যানাবেটিক বায়ু উষ্ণ, আদ্র ও হালকা হয়।
প্রবাহ সময়ক্যাটাবেটিক বায়ু শীতকালে মূলত রাত্রি ও ভোর বেলা প্রবাহিত হয়।অ্যানাবেটিক বায়ু গ্রীষ্মকালে মূলত দিনের বেলা প্রবাহিত হয়।

Leave a Comment