মাস্টার দা সূর্য সেনের জীবনী | Masterda Surya Sen Biography in Bengali

মাষ্টারদা সূর্য সেন জীবনী: Gksolve.in আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছে Masterda Surya Sen Biography in Bengali. আপনারা যারা মাষ্টারদা সূর্য সেন সম্পর্কে জানতে আগ্রহী সূর্য সেন এর জীবনী টি পড়ুন ও জ্ঞানভাণ্ডার বৃদ্ধি করুন।

মাষ্টারদা সূর্য সেন কে ছিলেন? Who is Surya Sen?

সূর্য সেন (২২ মার্চ ১৮৯৪ – ১২ জানুয়ারি ১৯৩৪) বা সূর্যকুমার সেন যিনি মাস্টারদা নামে সমধিক পরিচিত, তার ডাকনাম ছিল কালু, ভারতবর্ষের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম নেতা হিসেবে পরিচিত ব্যক্তিত্ব। পূর্ববঙ্গে জন্ম নেওয়া এই বাঙালি বিপ্লবী তৎকালীন ব্রিটিশ বিরোধী সশস্ত্র আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন এবং নিজ জীবন বলিদান করেন। সূর্যসেনের বাহিনী কয়েকদিনের জন্যে ব্রিটিশ শাসনকে চট্টগ্রাম এলাকা থেকে নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছিল।

সূর্য সেনের অন্যতম সাথী বিপ্লবী অনন্ত সিংহের ভাষায় “কে জানতো যে আত্মজিজ্ঞাসায় মগ্ন সেই নিরীহ শিক্ষকের স্থির প্রশান্ত চোখ দুটি একদিন জ্বলে উঠে মাতৃভূমির দ্বিশতাব্দীব্যাপি অত্যাচারের প্রতিশোধ নিতে উদ্যত হবে? ১৮৫৭ সালে সিপাহী বিদ্রোহ দমনের জন্য বর্বর অমানুষিক অত্যাচারের প্রতিশোধ, জালিয়ানওয়ালাবাগের নৃশংস হত্যাকান্ডের প্রতিশোধ! কে জানতো সেই শীর্ন বাহু ও ততোধিক শীর্ন পদযুগলের অধিকারী একদিন সাম্রাজ্যবাদী ইংরেজ রাজশক্তির বৃহত্তম আয়োজনকে ব্যর্থ করে – তার সমস্ত ক্ষমতাকে উপহাস করে বৎসরের পর বৎসর চট্টগ্রামের গ্রামে গ্রামে বিদ্রোহের আগুন জ্বালিয়ে তুলবে?”

মাস্টার দা সূর্য সেনের জীবনী | Masterda Surya Sen Biography in Bengali

নামসূর্যকুমার সেন
উপাধিমাস্টারদা
ডাকনামকালু
কে ছিলেনভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামী ও রাজনীতিবিদ
জন্ম তারিখ২২ শে মার্চ ১৮৯৪
পিতার নামরাজমনি সেন
মাতার নামশশী বালা সেন
স্ত্রীর নামপুষ্পকুন্তলা দত্ত
জন্ম স্থানচট্টগ্রাম
শিক্ষাবি.এ পাশ
বিদ্যালয়দয়াময়ী উচ্চ প্রাথমিক বিদ্যালয়।
নোয়াপাড়া উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয়।
ন্যাশনাল হাই স্কুল।
বিশ্ববিদ্যালয়চট্টগ্রাম কলেজ।
বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজ।
জাতীয়তাব্রিটিশ ভারত
ধর্মহিন্দু
জাতিবাঙালি
মৃত্যু১২ জানুয়ারি ১৯৩৪
মৃত্যুর কারণফাঁসি

Google News এ আমাদের ফলো করুন

gksolve-google-news

মাস্টার দা সূর্য সেনের জন্ম ও শৈশব জীবন

২২ শে মার্চ ১৮৯৪ সালে বর্তমান বাংলাদেশের চট্টগ্রামে অবস্থিত রাউজান থানার নোয়াপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন মাস্টার দা সূর্য সেন। তাঁর পরিবারটি অর্থনৈতিক খুব একটি ভালো ছিল না। তিনি তাঁর পিতা রাজমনি সেন ও মাতা শশী বালা সেনের ছটি সন্তানের মধ্যে চতুর্থ সন্তান ছিলেন। তাঁরা মোট দুই ভাই ও চার বোন ছিলেন। মাস্টার দা সূর্য খুব অল্প বয়সেই তাঁর মাতা-পিতাকে হারান ফলে তিনি তাঁর কাকা গৌরমনি সেনের কাছেই মানুষ হন।

মাস্টার দা সূর্য সেনের শিক্ষা জীবন

ছোট বেলা থেকেই সূর্য সেন পড়াশোনার দিকে পারদর্শী ছিলেন। তিনি দয়াময়ী উচ্চ প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে তাঁর প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন এবং পরে নোয়াপাড়া উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন। পরে তিনি হরিশদত্তের ন্যাশনাল স্কুল থেকে এন্ট্রান্স পরীক্ষা পাশ করে তত কালীন বাংলার বিখ্যাত একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চট্টগ্রাম কলেজে উচ্চ শিক্ষার জন্য ভর্তি হন। এখানে তিনি এফ. এ. পাশ করে ও বি.এ-তে ভর্তি হন। তবে বেশ কিছু কারণে তাঁকে এই কলেজ থেকে বিতাড়িত করা হয়। ফলে, তাঁকে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে অবস্থিত মুর্শিদাবাদ জেলার বিখ্যাত একটি মহাবিদ্যালয় বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজে থেকে তাঁর বি.এ কমপ্লিট করতে হয়।

মাস্টার দা সূর্য সেনের কর্ম জীবন ও বিবাহ

বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজ থেকে বি.এ কমপ্লিট করার পর তিনি চট্টগ্রামে ফিরে এসে হরিশদত্তের ন্যাশনাল স্কুলেই শিক্ষকতা শুরু করেন। পরে গান্ধীজির অসহযোগ আন্দোলনের ফলে বিদ্যালয়টি বন্ধ হয়ে যায় ফলে তিনি উমাতারা উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয়ে গণিতের শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতা শুরু করেন।

বিপ্লবী ভাবধারার কারণে মাস্টার দা সূর্য সেন বিবাহ করার পক্ষে ছিলেন না। তবে চন্দ্রনাথ সেন ও অন্যান্য আত্মীয়দের চাপে তিনি ১৯১৯ সালে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলার কানুনগোপাড়ার নগেন্দ্রনাথ দত্তের ষোল বছরের কন্যা পুষ্পকুন্তলা দত্তকে বিয়ে করেন। তবে তিনি তাঁর বিবাহের তিন দিন পরেই গ্রাম ছেড়ে শহরে চলে আসেন। ১৯২৬ সালে তাঁর স্ত্রী টাইফয়েড রোগে মারা যান।

মাস্টার দা সূর্য সেনের বিপ্লবী জীবন

বহররমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজে পড়াশোনা করার দরুন তিনি যুগান্তর দলের সদস্য অধ্যাপক সতীশচন্দ্র চক্রবর্তীর সন্নিকটে আসেন এবং বিপ্লবি ভাবধারার সঙ্গে যুক্ত হন। এর পর ১৯১৮ সালে চট্টগ্রামে ফিরে এসে তিনি অনুরূপ সেন, চারুবিকাশ দত্ত, অম্বিকা চক্রবর্তী, নগেন্দ্রনাথ সেন প্রমুখদের সঙ্গে নিয়ে চট্টগ্রামে গোপন বিপ্লবী দল গঠন করেন। শিক্ষকতার সাথে যুক্ত থাকার কারণে তাঁকে অন্যান্য বিপ্লবীরা মাস্টার দা নাম দেন।

তাঁর বিপ্লবী জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়ঃ গুলি নিচে দেওয়া হলো :-

নাগরখানা পাহাড় খন্ডযুদ্ধ:- ১৩ ই ডিসেম্বর ১৯২৩ সালে টাইগার পাস এর মোড়ে সূর্য সেনের গুপ্ত সমিতির সদস্যরা পাহাড়তলীতে অবস্থিত আসাম বেঙ্গল রেলওয়ে কারখানার শ্রমিকদের বেতনের ১৭,০০০ টাকার বস্তা ছিনতাই করে ছিলেন। এবং এই ঘটনার কারণে কিছু দিন পরে গুপ্ত সমিতির গোপন বৈঠক চলাকালীন সেখানে পুলিশ চলে আসে এবং গুপ্ত সমিতির সদস্য ও পুলিশের মধ্যে খন্ডযুদ্ধ শুরু হয়ে যাই। এই ঘটনাটিই “নাগরখানা পাহাড় খন্ডযুদ্ধ” নামে পরিচিত।

চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠন:- বিদ্রোহকে আরো তীব্র করার জন্য মাস্টার দা সূর্য সেন ইন্ডিয়ান রিপাবলিকান আর্মি, চিটাগাং ব্রাঞ্চ গঠন করেন এবং ঠিক করা হয় যে ১৮ ই এপ্রিল ১৯৩০ সালে চারটি দল মিলে ইংরেজদের ওপর আক্রমণ করবেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী একদল বিপ্লবী রেল লাইনের ফিসপ্লেট খুলে নেয়। এর ফলে চট্টগ্রাম সমগ্র ভারত থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। অন্য একটি দল চট্টগ্রামের নন্দনকাননে টেলিফোন এবং টেলিগ্রাফ অফিসে আক্রমণ করে সব যন্ত্রপাতি ভেঙ্গে দেয় এবং সেখানে আগুন জ্বালিয়ে দেয়া হয়। আরেকটি দল পাহাড়তলীতে অবস্থিত চট্টগ্রাম রেলওয়ে অস্ত্রাগার দখল করে সেখান থেকে উন্নতমানের রিভলবার ও রাইফেল লুন্ঠন করে নেয়। এবং একদল বিপ্লবীরা দামপাড়ায় পুলিশ রিজার্ভ ব্যারাক দখল করে নেয়। এই ঘটনা গুলির কারণে চট্টগ্রাম প্রায় চার দিনের জন্য ইংরেজ মুক্ত হয়ে যায়।

জালালাবাদ যুদ্ধ:- ২২ শে এপ্রিল ১৯৩০ সালে বিপ্লবীরা যখন জালালাবাদ পাহাড়ে অবস্থান করছিল তখন সশস্ত্র ইংরেজ সৈন্যরা তাদের ওপর আক্রমণ করে দেয়। এবং দুই ঘণ্টার যুদ্ধের পর ব্রিটিশ বাহিনীর ১০০ জন এবং বিপ্লবী বাহিনীর ১২ জন শহীদ হন। এই ঘটনাটিই “জালালাবাদ যুদ্ধ” নামে পরিচিত।

মাস্টার দা সূর্য সেনের শেষ জীবন

আগ্নেয়াস্ত্র বহন করার কারণে মাস্টার দা সূর্য সেন কে ১৪ ই আগস্ট ১৯৩৩ সালে প্রাণদন্ডে দণ্ডিত করা হয়। এর পর ১৯৩৪ সালের ১২ই জানুয়ারি মধ্যরাতে সূর্য সেনকে ফাঁসী দেওয়া হয়।

Frequently Asked Questions (FAQ):

Q. বিপ্লবী সূর্য সেন কি নামে পরিচিত ছিলেন?

বিপ্লবী সূর্য সেন মাস্টার দা নামে পরিচিত ছিলেন।

Q. মাস্টারদা সূর্য সেনের মৃত্যুর কারণ কি ছিল?

আগ্নেয়াস্ত্র বহন করার কারণে মাস্টার দা সূর্য সেন কে প্রাণদন্ডে দণ্ডিত করা হয়েছিল।

Q. চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠনের নায়ক কে ছিলেন?

চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠনের নায়ক মাস্টার দা সূর্য সেন ছিলেন।

Q. মাস্টারদা সূর্য সেন বিখ্যাত কেন?

মাস্টারদা সূর্য সেন ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামী ছিলেন তাই তিনি বিখ্যাত।

Q. জালালাবাদ পাহাড় কোথায় অবস্থিত?

জালালাবাদ পাহাড় চট্টগ্রামে অবস্থিত।

Leave a Comment