প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় বলয় – প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় মেখলা

প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় বলয় – প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় মেখলা: প্রশান্তমহাসাগরীয় অঞ্চলে প্রায় ৫০০ টি সক্রিয় আগ্নেয়গিরি আছে। এই আগ্নেয়গিরিগুলি প্রশান্ত মহাসাগরকে যেন রিং বা বন্ধনীর মত ঘিরে আছে। প্রশান্ত মহাসাগরকে কিছুটা বন্ধনীর মত ঘিরে থাকা এই আগ্নেয়গিরি মণ্ডলটিকেই ভূতাত্ত্বিকগণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় মেখলা বলে।

ভূমিরূপ বিদ্যায় একটি অতি গুরুত্ব পূর্ণ ধারণা হল প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় বলয় বা প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় মেখলা। এখানে এই প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় বলয় বলতে কি বোঝানো হয়, সে সম্পর্কে আলোচনা করা হলো। 

সংজ্ঞা – সাধারণত পৃথিবীর বৃহত্তম মহাদেশ প্রশান্ত মহাসাগর কে বেষ্টন করে মহাদেশ গুলির প্রান্ত ভাগে মেঘলা বা বলয়ের আকারে যে অসংখ্য আগ্নেয়গিরির সহাবস্থান দেখা যায়, তাকে প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় বলয় বলে। 

বিস্তৃতি – পৃথিবীর বৃহত্তম এই আগ্নেয় বলয় দক্ষিণ আমেরিকার দক্ষিণ তম স্থল ভাগ হর্ণ অন্তরীপ থেকে দক্ষিণ ও উত্তর আমেরিকার পশ্চিম উপকূল বরাবর অবস্থিত আন্ডিজ ও রকি পার্বত্য অঞ্চল হয়ে এশিয়া মহাদেশের পূর্ব উপকূল বরাবর অবস্থিত কামচাটকা,  জাপান, ফিলিপিন্স, পূর্ব ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জ অতিক্রম করে নিউজিল্যান্ড পর্যন্ত প্রসারিত। 

উল্লেখযোগ্য আগ্নেয়গিরি – পৃথিবীর দুই-তৃতীয়াংশ আগ্নেয়গিরি প্রশান্ত মহাসাগরকে ঘিরে অবস্থিত। প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় বলয়ের উল্লেখযোগ্য আগ্নেয়গিরি গুলি হল – মাউন্ট অ্যাকোন কাগোয়া, চিম্বরাজো, পপো ক্যাটি পেটল, মাউন্ট ফুজিয়ামা, কোটোপ্যাক্সি, মৌনালোয়া, ক্রাকাতোয়া আগ্নেয়গিরি প্রভৃতি। আলাস্কার The valley of ten thousand smokes এই বলয়েই অবস্থিত। 

প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় বলয় সৃষ্টির কারণ – প্রশান্ত মহাসাগরকে বেষ্টন করে অবস্থান করা এই আগ্নেয় বলয় টি প্রশান্ত মহাসাগরীয় পাত এবং পশ্চিম দিকে ইউরেশীয় পাত ও পূর্ব দিকে আমেরিকান পাতের অভিসারী পাত সীমানা বরাবর অবস্থিত। তাই এই অভিসারী পাত সীমানার অপেক্ষাকৃত ভারী প্রশান্ত মহাসাগরীয় পাত টি হালকা ইউরেশীয় পাত ও আমেরিকান পাতের নিচে প্রবিষ্ট হলে, প্রশান্ত মহাসাগরীয় পাতটি নিচে তাপের সংস্পর্শে এসে গলে ম্যাগমায় পরিণত হয় এবং ওই দুটি পাতের সংযোগ স্থলের দূর্বল অংশ দিয়ে বাইরে নির্গত হয়ে আগ্নেয় গিরির সৃষ্টি করে। 

Leave a Comment