সৌরজগৎ সম্পর্কিত প্রশ্ন ও উত্তর

সৌরজগৎ সম্পর্কিত প্রশ্ন ও উত্তর: সৌরজগৎ হল সূর্য ও প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সূর্য-প্রদক্ষিণকারী তথা পরস্পরের প্রতি অভিকর্ষজ টানে আবদ্ধ মহাজাগতিক বস্তুগুলিকে নিয়ে গড়ে একটি ব্যবস্থা। আকাশগঙ্গা ছায়াপথের কেন্দ্রস্থল থেকে ২৬,০০০ আলোকবর্ষ দূরে কালপুরুষ বাহুতে এই গ্রহ ব্যবস্থাটি অবস্থিত। সৌরজগতে প্রত্যক্ষভাবে সূর্য-প্রদক্ষিণকারী বস্তুগুলির মধ্যে আটটি গ্রহই বৃহত্তম। অন্য ক্ষুদ্রতর বস্তুগুলির মধ্যে রয়েছে বামন গ্রহ ও সৌরজগতের ক্ষুদ্র বস্তুসমূহ। পরোক্ষভাবে সূর্য-প্রদক্ষিণকারী বস্তুগুলির মধ্যে দু’টি প্রাকৃতিক উপগ্রহ ক্ষুদ্রতম গ্রহ বুধের থেকেও আকারে বড়ো।

৪৬০ কোটি বছর আগে একটি দৈত্যাকার আন্তঃনাক্ষত্রিক আণবিক মেঘের মহাকর্ষীয় পতনের ফলে সৌরজগতের উদ্ভব ঘটেছিল। সমগ্র সৌরজগতের ভরের অধিকাংশ অংশই রয়েছে সূর্যে এবং অবশিষ্ট ভরের অধিকাংশ ধারণ করে রয়েছে বৃহস্পতি। চারটি ক্ষুদ্রতর অভ্যন্তরীণ গ্রহ, অর্থাৎ বুধ, শুক্র, পৃথিবী ও মঙ্গল হল শিলাময় গ্রহ। এগুলি প্রধানত শিলা ও ধাতু দ্বারা গঠিত। চারটি বহিঃস্থ গ্রহ হল দানব গ্রহ। কারণ, বস্তুগত দিক থেকে এগুলি শিলাময় গ্রহগুলির তুলনায় অনেক কম ঘনত্বযুক্ত হলেও আয়তন অত্যধিক বেশি হওয়ায় অনেক বেশি ভরযুক্ত। এগুলির মধ্যে বৃহত্তম গ্রহ দু’টি হল বৃহস্পতি ও শনি। মূলত হাইড্রোজেন ও হিলিয়াম দ্বারা গঠিত বলে এগুলি গ্যাস দানব নামে পরিচিত। অপর দুই সর্ববহিঃস্থ গ্রহ ইউরেনাস ও নেপচুন তুষার দৈত্য নামে পরিচিত। কারণ এগুলির প্রধান উপাদান হল জল, অ্যামোনিয়া ও মিথেনের মতো উদ্বায়ী, যেগুলি হাইড্রোজেন ও মিথেনের তুলনায় আপেক্ষিকভাবে উচ্চ গলনাঙ্ক-যুক্ত। আটটি গ্রহই ক্রান্তিবৃত্ত নামে পরিচিত একটি প্রায় চ্যাপ্টা চাকতির ভিতর প্রায় বৃত্তাকার কক্ষপথে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে।

অসংখ্য ক্ষুদ্রতর বস্তুও সৌরজগতের অন্তর্গত। মঙ্গল ও বৃহস্পতি গ্রহের কক্ষপথের মধ্যবর্তী অঞ্চলে সঞ্চরণশীল গ্রহাণু বেষ্টনীর অন্তর্গত বস্তুগুলির উপাদান শিলাময় গ্রহগুলির মতোই শিলা ও ধাতু। নেপচুনের কক্ষপথের বাইরে অবস্থিত কাইপার বেষ্টনী ও বিক্ষিপ্ত চাকতি অঞ্চলে রয়েছে নেপচুন-উত্তর বস্তুগুলি। এই বস্তুগুলি মূলত বরফে গঠিত এবং এগুলিরও বাইরে সাম্প্রতিককালে আবিষ্কৃত হয়েছে সেডনয়েডের সমারোহ। এই সকল বস্তুর মধ্যে কয়েকটির আকার এতটাই বড়ো যে সেগুলির অভিকর্ষজ টান সেগুলিকে গোলকের আকার দানের পক্ষে যথেষ্ট। তবে এই জাতীয় সঠিক কতগুলি বস্তু ওই অঞ্চলে রয়েছে তা এখনও প্রমাণিত নয় বলে সেই বিষয়ে কিছু বিতর্ক রয়েছে। এই ধরনের বস্তুগুলিকে বামন গ্রহের শ্রেণিভুক্ত করা হয়। চিহ্নিত অথবা স্বীকৃত বামন গ্রহগুলির অন্যতম হল সেরেস এবং নেপচুন-উত্তর বস্তু প্লুটো ও এরিস। এই দুই অঞ্চল ছাড়াও অন্য বিভিন্ন ধরনের ক্ষুদ্রাকার বস্তু, যেমন ধূমকেতু, সেন্টোর ও আন্তঃগ্রহ ধূলি মেঘ সৌরজগতের বিভিন্ন অঞ্চলের মধ্যে মুক্তভাবে সঞ্চরণশীল। ছয়টি গ্রহ, ছয়টি বৃহত্তম সম্ভাব্য বামন গ্রহ এবং অনেক ক্ষুদ্রাকার বস্তুকে প্রদক্ষিণকারী প্রাকৃতিক উপগ্রহেরও অস্তিত্ব আছে। পৃথিবীর চাঁদের নামানুসারে এগুলিকে সাধারণভাবে “চাঁদ” বলে উল্লেখ করা হয়। প্রত্যেকটি বহিঃস্থ গ্রহকেই ঘিরে রয়েছে ধূলা ও অন্যান্য ক্ষুদ্র বস্তু দ্বারা গঠিত একটি করে গ্রহীয় বলয়।

সূর্য থেকে বাইরের দিকে প্রবহমান বৈদ্যুতিক আধান-যুক্ত কণার একটি স্রোত সৌর বায়ু নামে পরিচিত। এটি সৌরগোলক নামে পরিচিত আন্তঃনাক্ষত্রিক মাধ্যমে একটি বুদবুদ-তুল্য অঞ্চল সৃষ্টি করেছে। সৌরবিরতি হল সেই বিন্দু যেখানে সৌর বায়ুর চাপ আন্তঃনাক্ষত্রিক মাধ্যমের বিপরীত চাপের সমান; এটি বিক্ষিপ্ত চাকতির সীমা পর্যন্ত বিস্তৃত। দীর্ঘকালীন ধূমকেতুগুলির উৎসস্থল হিসাবে বিবেচিত উর্ট মেঘ সম্ভবত সৌরবিরতির থেকে মোটামুটি এক হাজার গুণ দূরত্বে অবস্থিত।

সৌরজগৎ সম্পর্কিত প্রশ্ন ও উত্তর

1. সৌরজগৎ কাকে বলে?
উঃ সৌরজগতের কেন্দ্রস্থলে রয়েছে সূর্য। পৃথিবীসহ মোট ৮ টি গ্রহ, এদের বিভিন্ন উপগ্রহ, ধূমকেতু, উল্কা, গ্রহাণু এবং আরও অনেক ছোট ছোট জ্যোতিষ্ক সূর্যের চারিদিকে প্রদক্ষিণ করে। সূর্যকে নিয়ে এই যে জগৎ তাকে সৌরজগৎ বলে।

2. জ্যোতিষ্ক কাকে বলে?
উঃ সূর্য, চাঁদ এবং অন্যান্য যেসব আলোকিত বিন্দু রাতের আকাশের গায়ে দেখা যায় তাদের সাধারণভাবে জ্যোতিষ্ক বলে।

3. গ্রহ কাকে বলে?
উঃ যারা নির্দিষ্ট কক্ষপথে থেকে সূর্যের চারিদিকে ঘোরে এবং যাদের নিজস্ব আলো বা উত্তাপ নেই, তাদের গ্রহ বলে। যেমন –পৃথিবী, মঙ্গল প্রভৃতি।

4. উপগ্রহ কাকে বলে?
উঃ যারা গ্রহের চারিদিকে ঘোরে তাদের উপগ্রহ বলে। যেমন – চাঁদ।

5. হ্যালির ধূমকেতু কত বছর অন্তর দেখা যায়?
উঃ ৭৬ বছর অন্তর।

6. সূর্যের সবচেয়ে কাছের গ্রহের নাম কী?
উঃ বুধ।

7. সূর্য থেকে বুধের দূরত্ব কত?
উঃ প্রায় ৫ কোটি ২৭ লক্ষ কিমি।

8. বুধের নিরক্ষীয় ব্যাস কত?
উঃ প্রায় ৪৮২৮ কিমি।

9. নিজের মেরুদণ্ডের চারিদিকে একবার আবর্তন করতে বুধের কত সময় লাগে?
উঃ ৫৮ দিন ১৭ ঘণ্টা।

10. সূর্যের চারিদিকে একবার পরিক্রমণ করতে বুধের কত সময় লাগে?
উঃ ৮৮ দিন।

11. পৃথিবীর সবচেয়ে কাছের গ্রহ কোনটি?
উঃ শুক্র।

12. সূর্য থেকে শুক্রের গড় দূরত্ব কত?
উঃ প্রায় ১০ কোটি ৭৮ লক্ষ কিমি।

13. শুক্রের নিরক্ষীয় ব্যাস কত?
উঃ প্রায় ১২৭৫৭ কিমি।

14. সূর্য থেকে মঙ্গলের গড় দূরত্ব কত?
উঃ প্রায় ২২ কোটি ৮০ লক্ষ কিমি।

15. মঙ্গলের নিরক্ষীয় ব্যাস কত?
উঃ প্রায় ৬৭৯০ কিমি।

16. নিজের মেরুদণ্ডের চারিদিকে একবার আবর্তন করতে মঙ্গলের কত সময় লাগে?
উঃ ২৪ ঘণ্টা ৩৭ মিনিট।

17. সূর্যের চারিদিকে একবার পরিক্রমণ করতে মঙ্গলের কত সময় লাগে?
উঃ ৬৮৭ দিন।

18. মঙ্গলের কটি উপগ্রহ? কী কী?
উঃ দুটি উপগ্রহ। ফোবোস ও ডাইমোস।

19. সৌরজগতের সবচেয়ে বড় গ্রহ কোনটি?
উঃ বৃহস্পতি।

20. সূর্য থেকে বৃহস্পতির গড় দূরত্ব কত?
উঃ প্রায় ৭৭ কোটি ৯১ লক্ষ কিমি।

21. বৃহস্পতির নিরক্ষীয় ব্যাস কত?
উঃ ১ লক্ষ ৪২ হাজার ৭৪৫ কিমি।

22. নিজের মেরুদণ্ডের চারিদিকে একবার আবর্তন করতে বৃহস্পতির কত সময় লাগে?
উঃ ৯ ঘণ্টা ৫০ মিনিট।

23. সূর্যের চারিদিকে একবার পরিক্রমণ করতে বৃহস্পতির কত সময় লাগে?
উঃ ১২ বছর ।

24. বৃহস্পতির কটি উপগ্রহ আছে?
উঃ ৭৯ টি।

25. বৃহস্পতির সবচেয়ে বড় উপগ্রহটির নাম কী?
উঃ গ্যানিমিড।

26. সূর্য থেকে শনির গড় দূরত্ব কত?
উঃ প্রায় ১৪২ কোটি ৬০ লক্ষ কিমি।

27. শনির নিরক্ষীয় ব্যাস কত?
উঃ প্রায় ১ লক্ষ ২০ হাজার ৮৫৮ কিমি।

28. নিজের মেরুদণ্ডের চারিদিকে একবার আবর্তন করতে শনির কত সময় লাগে?
উঃ ১০ ঘণ্টা ১৪ মিনিট।

29. সূর্যের চারিদিকে একবার পরিক্রমণ করতে শনির কত সময় লাগে?
উঃ ২৯ বছর ৬ মাস।

30. শনির কটি উপগ্রহ আছে?
উঃ ৮২ টি।

31. শনির সবচেয়ে বড় উপগ্রহটির নাম কী?
উঃ টাইটান।

32. সৌরজগতের সবচেয়ে বড় উপগ্রহটির নাম কী?
উঃগ্যানিমিড ।

33. সূর্য থেকে ইউরেনাসের গড় দূরত্ব কত?
উঃ প্রায় ২৮৭ কোটি কিমি।

34. ইউরেনাসের নিরক্ষীয় ব্যাস কত?
উঃ প্রায় ৪৯ হাজার ১৫২ কিমি।

35. নিজের মেরুদণ্ডের চারিদিকে একবার আবর্তন করতে ইউরেনাসের কত সময় লাগে?
উঃ ১০ ঘণ্টা ৪২ মিনিট।

36. সূর্যের চারিদিকে পরিক্রমণ করতে ইউরেনাসের কত সময় লাগে?
উঃ ৮৪ বছর ১ মাস।

37. ইউরেনাসের কটি উপগ্রহ আছে?
উঃ ২৭ টি।

38. সূর্য থেকে নেপচুনের গড় দূরত্ব কত?
উঃ প্রায় ৪৪৯ কোটি ৩০ লক্ষ কিমি।

39. নেপচুনের নিরক্ষীয় ব্যাস কত?
উঃ ৪৪ হাজার ৮০০ কিমি।

40. নিজের চারিদিকে একবার আবর্তন করতে নেপচুনের কত সময় লাগে?
উঃ ১৫ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট।

41. সূর্যের চারিদিকে একবার পরিক্রমণ করতে নেপচুনের কত সময় লাগে?
উঃ ১৬৫ বছর।

42. নেপচুনের কটি উপগ্রহ আছে?
উঃ ১৪টি।

43. সূর্য থেকে প্লুটোর গড় দুরত্ব কত?
উঃ প্রায় ৫৮৯ কোটি ৮০ লক্ষ কিমি।

44. প্লুটোর নিরক্ষীয় ব্যাস কত?
উঃ প্রায় ৬৪০০ কিমি।

45. নিজের চারিদিকে একবার আবর্তন করতে প্লুটোর কত সময় লাগে?
উঃ ৬ দিন।

46. সূর্যের চারিদিকে একবার পরিক্রমণ করতে প্লুটোর কত সময় লাগে?
উঃ ২৪৮ বছর।

47. নিজের মেরুদণ্ডের চারিদিকে একবার আবর্তন করতে শুক্রের কত সময় লাগে?
উঃ ২৪৩ দিন।

48. সূর্যের চারিদিকে একবার পরিক্রমণ করতে শুক্রের কত সময় লাগে?
উঃ ২২৪ দিন।

49. ভূপৃষ্ঠের ক্ষেত্রফল কত?
উঃ ৫১ কোটি ৬৬ হাজার বর্গ কিমি।

50. কলকাতায় পৃথিবীর আবর্তনের গতিবেগ কত?
উঃ ১৫৩৬ কিমি (ঘণ্টায়)।

51. সূর্য থেকে দুরত্ব অনুসারে পৃথিবী কততম গ্রহ?
উঃ তৃতীয় গ্রহ।

52. আয়তন অনুসারে সূর্য পৃথিবীর কত নং গ্রহ?
উঃ পঞ্চম গ্রহ। (প্রথম –বৃহস্পতি, দ্বিতীয় – শনি, তৃতীয় – ইউরেনাস, চতুর্থ নেপচুন)।

53. পৃথিবীর গড় পরিধি কত?
উঃ প্রায় ৪০০০০ কিমি।

54. ইরাসথেনিসের মতে পৃথিবীর পরিধি কত?
উঃ ৪৬ হাজার ২৫০ কিমি।

55. পৃথিবীর ওজন কত?
উঃ প্রায় ৫৯৭৬ মিলিয়ন মিলিয়ন মিলিয়ন মেট্রিক টন ।

56. পৃথিবীর কটি গতি? কী কী?
উঃ দুটি গতি। আহ্নিক গতি ও বার্ষিক গতি।

57. নিজের মেরুদণ্ডের চারিদিকে একবার আবর্তন করতে পৃথিবীর কত সময় লাগে?
উঃ ২৩ ঘণ্টা ৫৬ মিনিট ২ সেকেণ্ড।

58. সূর্যের চারিদিকে একবার পরিক্রমণ করতে পৃথিবীর কত সময় লাগে?
উঃ ৩৬৫ দিন ৫ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৪৬ সেকেণ্ড।

59. পৃথিবীর উপগ্রহের নাম কী?
উঃ চাঁদ।

60. চাঁদের ব্যাস কত?
উঃ প্রায় ৩৪৭৬ কিমি।

61. পৃথিবী থেকে চাঁদের দুরত্ব কত?
উঃ প্রায় ৩ লক্ষ ৮৪ হাজার ৪০০ কিমি।

62. নিজের মেরুদণ্ডের চারিদিকে চাঁদের একবার ঘুরতে কত সময় লাগে?
উঃ ২৭.৩ দিন।

63. পৃথিবী থেকে সূর্যের দুরত্ব কত?
উঃ প্রায় ১৫ কোটি কিমি।

64. সূর্য থেকে পৃথিবীতে আলো আসতে কত সময় লাগে?
উঃ ৮ মিনিট ২০ সেকেন্ড।

65. আলোর গতিবেগ কত?
উঃ সেকেণ্ডে প্রায় ৩ লক্ষ কিমি (১ লক্ষ ৮৬ হাজার মাইল)।

66. প্রথম মহাকাশযানের নাম কী? সেটি কবে মহাকাশে যাত্রা করে?
উঃ স্পুৎনিক। ১৯৫৭ সালের ৪ ঠা অক্টোবর।

67. প্রথম মহাকাশচারীর নাম কী? তিনি কবে কোন মহাকাশযানে চড়ে পৃথিবী প্রদক্ষিণ করে?
উঃ ইউরী গ্যাগারিন। ১৯৬১ সালের ১২ ই এপ্রিল ভস্টক-১ নামে মহাকাশযানে চড়ে পৃথিবী প্রদক্ষিণ করে।

68. মহাকাশ থেকে পৃথিবীকে দেখতে কেমন লাগে?
উঃ উজ্জ্বল নীল গোলক বলে মনে হয়।

69. পৃথিবীর মেরুব্যাস কত?
উঃ ১২৭১৪ কিমি।

70. পৃথিবীর নিরক্ষীয় ব্যাস কত?
উঃ ১২৭৫৭ কিমি।

71. পৃথিবীর মেরুব্যাস ও নিরক্ষীয় ব্যাসের মধ্যে পার্থক্য কত?
উঃ ৪৩ কিমি।

72. পৃথিবীর গড় ব্যাস কত?
উঃ ১২৭৩৫ কিমি।

73. পৃথিবীর গড় ব্যাসার্ধ কত?
উঃ ৬৩৬৮ কিমি।

74. এরাটস্থনিস পৃথিবীর ব্যাসার্ধ কত নির্ণয় করেছিলেন?
উঃ ৬৪০০ কিমি।

Leave a Comment