দক্ষিণী দোলন ও এনসো ইভেন্ট

দক্ষিণী দোলন ও এনসো ইভেন্ট: দক্ষিনী দোলন ও এনসো ইভেন্ট প্রশান্ত মহাসাগরীয় ক্রান্তীয় অঞ্চলের অন্তর্গত এমন এক আবহিক ঘটনা যা পৃথিবীর এক বিস্তৃত অঞ্চলের জলবায়ু নিয়ন্ত্রনে গুরুত্ব পূর্ন ভূমিকা পালন করে। দক্ষিনী দোলন বা সার্দান অসিলিয়েশন একটি অবিচ্ছিন্ন ঘটনা, যা প্রশান্ত মহাসাগরের উভয় উপকুলের উচ্চচাপ অর্থাৎ লা নিনা এবং নিম্নচাপ অর্থাৎ এল নিনো দুটো অবস্থার সাথেই সম্পর্কীত। প্রশান্ত মহাসাগরের উভয় উপকূলের চাপের উপর নির্ভর করে পূর্ব পশ্চিমে বায়ুর যে চক্রাকার আবর্তন লক্ষ্য করা যায়, তাকেই দক্ষিনী দোলন বা সার্দান অসিলিয়েশন বলে।

ওয়াকার সার্কুলেশন কাকে বলে?

লা নিনা অবস্থার সময় দক্ষিন আমেরিকার পশ্চিম উপকূল বরাবর প্রবাহিত হামবোল্ড বা পেরু স্রোতের প্রভাবে শক্তিশালী পূবালি পশ্চিমা বায়ুর প্রভাবে শীতল জলের ঊর্ধ্ব-উত্তোলন ঘটে, যার ফলে এই অঞ্চলে প্রচুর প্লাংটন ও মাছের সমাবেশ ঘটে। এই সময় বায়ু পূর্ব প্রশান্ত মহাসাগরীয় উচ্চচাপ অঞ্চল থেকে সমুদ্র পৃষ্ট বরাবর পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দিকে ধাবিত হয় এবং সেখানে প্রচুর বৃষ্টিপাত ঘটায়। এরপর এটি হালকা হয়ে বায়ুমণ্ডলের উপরে উঠে পূর্ব মুখী হয়ে আবার পূর্ব প্রশান্ত মহাসাগরে অধোগমন করে। বায়ুর এই চক্রাকার আবর্তন কেই দক্ষিনী দোলন বা ওয়াকার সার্কুলেশন বলা হয়। অর্থাৎ লা নিনা সম্পর্কীত ঘটনা  ওয়াকার সার্কুলেশন নামে পরিচিত। বার্কনেস “ওয়াকার সার্কুলেশন” শব্দটি ১৯৬৯ সালে ব্যবহার করেন ।  

এনসো ইভেন্ট ইভেন্ট বলতে কী বোঝ?

প্রতি বছর ডিসেম্বর মাসের শুরুর দিকে একটি দূর্বল দক্ষিন মুখী উষ্ণ জলপ্রবাহের সৃষ্টি হয় যা উত্তরমুখী শীতল পেরু স্রোতকে প্রতিস্থাপিত করে পেরু ও ইকুয়েডর উপকূলের ৬ ডিগ্রি দক্ষিন অক্ষরেখা বরাবর প্রবাহিত হয়ে শীতল জলের ঊর্ধ্ব গমন কে অবরুদ্ধ করে।এই ঘটনাটি এল নিনো (El Nino) নামে পরিচিত। এটি গড়ে চার বছর অন্তর দেখা যায়। এর ফলে ভয়ংকর বাস্তুতান্ত্রিক ও অর্থনৈতিক ক্ষতির সম্মুখিন হতে হয়। যেমন – মাছের উৎপাদন কমে যায়, প্রচুর পাখি মারা যায়। মাছের উৎপাদন কমে যাওয়ায় পেরু, ইকুয়েডর ও দক্ষিন চিলির মৎস্য ব্যবসা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখিন হয়।

পূর্ব প্রশান্ত মহাসাগরে উষ্ণ এল নিনো স্রোতের প্রবাহের ফলে এই অংশে নিম্নচাপের সৃষ্টি হয় যা ওয়াকার সার্কুলেসনকে দূর্বল করে দেয় অর্থাৎ পূর্ব ও পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরের মধ্যে চাপঢালের পরিবর্তন হয়। ফল স্বরূপ পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল থেকে পূর্ব প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দিকে বায়ুর পৃষ্ট প্রবাহ দেখা যায় এবং সেই বায়ু প্রশান্ত মহাসাগরের পূর্ব উপকূলে এসে প্রচুর বৃষ্টিপাত ঘটায়। তাই এল নিনো পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে অস্ট্রেলিয়ার পূর্ব উপকূলে খরার সৃষ্টি হয় এবং পেরু ইকুয়েডর উপকূলে প্রবল বৃষ্টি ও বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এল নিনো সাথে সম্পর্কীত এই বিপরীত ঘটনাটি এনসো ইভেন্ট (ENSO Event) নামে পরিচিত।

Leave a Comment