উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন জীবনী – William Thomson Baron Kelvin Biography in Bengali

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন জীবনী: gksolve.in আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছে William Thomson Baron Kelvin Biography in Bengali. আপনারা যারা উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন সম্পর্কে জানতে আগ্রহী উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন এর জীবনী টি পড়ুন ও জ্ঞানভাণ্ডার বৃদ্ধি করুন।

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন কে ছিলেন? Who is William Thomson Baron Kelvin?

উইলিয়াম থমসন, 1ম ব্যারন কেলভিন (26 জুন 1824 – 17 ডিসেম্বর 1907) বেলফাস্টে জন্মগ্রহণকারী ব্রিটিশ গণিতবিদ, গাণিতিক পদার্থবিদ এবং প্রকৌশলী ছিলেন। 53 বছর ধরে গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাকৃতিক দর্শনের অধ্যাপক, তিনি বিদ্যুতের গাণিতিক বিশ্লেষণ এবং তাপগতিবিদ্যার প্রথম ও দ্বিতীয় সূত্র প্রণয়নে গুরুত্বপূর্ণ কাজ করেছেন এবং পদার্থবিজ্ঞানের উদীয়মান শৃঙ্খলাকে একত্রিত করার জন্য অনেক কিছু করেছেন। তার সমসাময়িক আকারে। তিনি 1883 সালে রয়্যাল সোসাইটির কোপলি পদক পেয়েছিলেন, 1890-1895 সালে এর সভাপতি ছিলেন এবং 1892 সালে প্রথম ব্রিটিশ বিজ্ঞানী ছিলেন যিনি হাউস অফ লর্ডসে উন্নীত হন।

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন জীবনী – William Thomson Baron Kelvin Biography in Bengali

নামউইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন
জন্ম26 জুন 1824
পিতাজেমস থমসন
মাতামার্গারেট গার্ডনার
জন্মস্থানবেলফাস্ট, আয়ারল্যান্ড
জাতীয়তাব্রিটিশ
পেশাগণিতবিদ, গাণিতিক পদার্থবিদ এবং প্রকৌশলী
মৃত্যু17 ডিসেম্বর 1907 (বয়স 83)

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন এর জন্ম: William Thomson Baron Kelvin’s Birthday

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন 1824 সালের 26 জুন জন্মগ্রহণ করেন।

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন এর পিতামাতা ও জন্মস্থান: William Thomson Baron Kelvin’s Parents And Birth Place

পদার্থ বিজ্ঞানে বেশ কিছু মূল্যবান আবিষ্কারের জন্য বিজ্ঞানের ইতিহাসে কেলভিনের নাম স্মরণীয় হয়ে আছে। বিজ্ঞান ক্ষেত্রে তিনি লর্ড কেলভিন, টমসন কেলভিন, এই দুই নামেই পরিচিত ছিলেন। স্কটল্যান্ডের বেলফাস্টে ১৮২৪ খ্রিঃ ২৬ শে জুন জন্মগ্রহণ করেন কেলভিন। তাঁর পিতা জেমস টমসন ছিলেন গণিতের অধ্যাপক।

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন এর শিক্ষাজীবন: William Thomson Baron Kelvin’s Educational Life

পিতার উৎসাহ ও প্রেরণাতেই গণিত ও বিজ্ঞান শিক্ষার প্রতি কেলভিন আকৃষ্ট হন। কেলভিন ছিলেন অসাধারণ মেধাবী। মাত্র ১৭ বছর বয়সেই তিনি গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক হন। পরে গণিতের উচ্চতর শিক্ষা ও গবেষণার জন্য ভর্তি হন কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ৷ কেমব্রিজের অধ্যয়ন শেষ করে তিনি ফ্রান্সে যান। সেখানকার বিভিন্ন গবেষণাগারেও কিছুকাল গবেষণা করেন।

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন এর কর্ম জীবন: William Thomson Baron Kelvin’s Work Life

১৮৪৬ খ্রিঃ দেশে ফিরে এসে গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্থবিদ্যার অধ্যাপকের পদ গ্রহণ করেন। আমৃত্যু তিনি এখানেই কর্মনিযুক্ত ছিলেন। তাপগতি বিদ্যায় কেলভিনের মূল্যবান আবিষ্কার হল উষ্ণতা পরিমাপের অ্যাবসলিউট স্কেল। এই স্কেল আবিষ্কারকের নামে কেলভিন স্কেল নামেও পরিচিত। কেলভিনই প্রথম উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন তাপগতিবিদ্যার সাহায্যে এমন একটি স্কেল কল্পনা করা সম্ভব যা কোনও পদার্থেরই বিশেষ কোনও ধর্মের ওপর নির্ভর করবে না।

এই কল্পনা থেকেই তাঁর অ্যাবসলিউট স্কেলের উদ্ভাবন সম্ভব হয়েছিল। গ্যাস তরলীকরণের সূত্রও আবিষ্কার করেছিলেন কেলভিন। পদার্থবিদ্যায় এটি তার দ্বিতীয় অবদান। তিনি অপর এক বিজ্ঞানী জেমস প্রেসকট জুল – এর সঙ্গে যুগ্মভাবে এই সূত্রটি আবিষ্কার করেছিলেন। সেই কারণে তো জুল – টমসন এফেক্ট বা জুল – কেলভিন এফেক্ট নামে পরিচিত। অক্সিজেন, নাইট্রোজেন, বায়ু প্রভৃতি স্থায়ী গ্যাস রূপেই চিহ্নিত ছিল।

কেলভিন ও জুল – এর আবিষ্কৃত পদ্ধতির সাহায্যেই এই গ্যাসগুলিকে তরলে রূপান্তরিত করা সম্ভব হয়েছে। অত্যন্ত সংবেদনশীল একটি গ্যালভানোমিটার আবিষ্কার করে কেলভিন সেইকালে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কাজ সম্পূর্ণ করতে সাহায্য করেছিলেন। সেই কাজটি হল আটলান্টিক মহাসাগরের তলদেশে টেলিগ্রাফের তার স্থাপন। এই উদ্দেশ্যে একটি সংস্থা গঠন করা হয়েছিল। এই সংস্থার প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন কেলভিন।

বিভিন্ন অসুবিধার কারণে কাজটি বারবার বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছিল। কেলভিনের আবিষ্কৃত গ্যালভানোমিটার সেই অসুবিধাগুলো দূর করে কাজটিকে সফল করে তুলেছিলেন। নৌ – চালনা সংক্রান্ত বেশকিছু ফলপ্রদ যন্ত্রপাতিও আবিষ্কার করেছিলেন কেলভিন। টাইডাল অ্যানালাইজার এবং টাইডাল প্রেডিকটর এক্ষেত্রে বিশেষ উল্লেখযোগ্য। সমুদ্রের গভীরতা পরিমাপ করবার ফ্যাদমিটার যন্ত্রটি কেলভিনেরই আবিষ্কার।

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন এর পুরস্কার ও সম্মান: William Thomson Baron Kelvin’s Awards And Honors

বিজ্ঞান সাধনার স্বীকৃতি স্বরূপ কেলভিন দেশে বিদেশে সম্মান লাভ করেছেন। তিনি নাইট উপাধি লাভ করেন ১৮৬৬ খ্রিঃ। ব্যারন কেলভিন অব লাগজ উপাধিতে ভূষিত হন ১৮৯২ খ্রিঃ ! লন্ডন রয়েল সোসাইটির ফেলো এবং পরে ১৮৯০ খ্রিঃ সভাপতি মনোনীত হয়েছিলেন। ১৯০২ খ্রিঃ তিনি লাভ করেন অর্ডার অব মেরিট উপাধি।

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন এর রচনা: Written by William Thomson Baron Kelvin

কেলভিনের মূল্যবান গ্রন্থগুলি হল ৬ খন্ডে ম্যাথম্যাটিক্যাল অ্যান্ড ফিজিক্যাল পেপারস, ৩ খন্ডে পপুলার লেকচারস অ্যান্ড অ্যাড্রেসেজ এবং মলিকিউলার ট্যাকটিকস অব এ ক্রিস্ট্যাল।

উইলিয়াম থমসন ব্যারন কেলভিন এর মৃত্যু: William Thomson Baron Kelvin’s Death

১৯০৭ খ্রিঃ ১৭ ডিসেম্বর স্কটল্যান্ডে মৃত্যু হয় বরণীয় বিজ্ঞানী কেলভিনের।

Leave a Comment