উত্তর ভারতের নদনদী ও দক্ষিণ ভারতের নদনদীর পার্থক্য লেখো।

উত্তর ভারতের নদনদী ও দক্ষিণ ভারতের নদনদীর পার্থক্য লেখো।

উত্তর ভারতের নদনদী ও দক্ষিণ ভারতের নদ নদীর পার্থক্যগুলি হল নিম্নরূপ:

১)সংজ্ঞা: সাতপুরা ও বিন্ধ্য পর্বতের উত্তরাংশের নদী গোষ্ঠীকে একত্রে উত্তর ভারতের নদনদী বলে। অন্যদিকে, সাতপুরা ও বিন্ধ্য পর্বতের দক্ষিণাংশের নদীগোষ্ঠীকে একত্রে দক্ষিণ ভারতের নদনদী বলে।

২)উৎপত্তি: উত্তর ভারতের নদনদীগুলির অধিকাংশ হিমালয় পর্বতের বিভিন্ন হিমবাহ থেকে উৎপত্তি লাভ করেছে। অন্যদিকে, দক্ষিণ ভারতের নদনদীগুলি মধ্য ও দক্ষিণ ভারতের বিভিন্ন উচ্চভূমি থেকে উৎপত্তি লাভ করেছে।

৩)প্রকৃতি: হিমালয় পর্বত সৃষ্টির আগে উত্তর ভারতের কোন কোন নদনদীর অস্তিত্ব ছিল বলে, এদের পূর্ববর্তী নদী বলে। অন্যদিকে, ভূমির প্রাথমিক ঢাল অনুযায়ী প্রবাহিত হয় বলে দক্ষিণ ভারতের নদনদীগুলিকে অনুগামী নদী বলে।

৪)দৈর্ঘ্য: উত্তর ভারতের নদনদীগুলির দৈর্ঘ্য খুব বেশি। অন্যদিকে, দক্ষিণ ভারতের নদনদীগুলির দৈর্ঘ্য অপেক্ষাকৃত কম।

৫)বয়স: উত্তর ভারতের নদনদীগুলি বয়সে নবীন। অন্যদিকে, দক্ষিণ ভারতের নদনদীগুলি বয়সে প্রবীণ।

৬) আদর্শ নদী: উত্তর ভারতের নদনদীগুলির উচ্চ, মধ্য ও নিম্ন-এই তিনটি গতিই সুস্পষ্ট ভাবে বোঝা যায়। তাই এগুলি আদর্শ নদী। অন্যদিকে, দক্ষিণ ভারতের নদনদীগুলির তিনটি সুস্পষ্ট গতি নেই। তাই এগুলি আদর্শ নদী নয়।

৭)জলপ্রবাহ: বরফ গলা ও বৃষ্টির জলে পুষ্ট বলে উত্তর ভারতের নদনদীগুলিতে সারাবছর জল থাকে। তাই এগুলি চিরপ্রবাহী বা নিত্যবহ। অন্যদিকে, কেবলমাত্র বৃষ্টির জলে পুষ্ট বলে দক্ষিণ ভারতের বেশিরভাগ নদনদীগুলিতে বর্ষাকাল ছাড়া বছরের অধিকাংশ সময়েই জল থাকে না। তাই এগুলি চিরপ্রবাহী নয় বা অনিত্যবহ।

৮)গতিবেগ: উত্তর ভারতের নদনদীগুলি উচ্চগতিতে খরস্রোতা এবং মধ্য ও নিম্ন গতিতে মৃদু গতিবেগ সম্পন্ন হয়। অন্যদিকে, বন্ধুর ভূ-প্রকৃতির ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয় বলে দক্ষিণ ভারতের নদনদীগুলি প্রবাহপথের বেশিরভাগ অংশেই খরস্রোতা বা তীব্র গতিবেগ সম্পন্ন হয়।

৯)নাব্যতা: উত্তর ভারতের নদনদীগুলি তাদের প্রবাহপথের বেশিরভাগ অংশই সমভূমির ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয় বলে এগুলি নাব্য বা নৌ পরিবহন যোগ্য। অন্যদিকে, দক্ষিণ ভারতের নদনদীগুলি তাদের প্রবাহপথের বেশিরভাগ অংশই উঁচু-নিচু বা বন্ধুর মালভূমির ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয় বলে এগুলি খরস্রোতা ও অনাব্য অর্থাৎ নৌ-পরিবহনের অযোগ্য।

১০)বদ্বীপ সৃষ্টি: উত্তর ভারতের নদনদীগুলির মোহনায় সুবিশাল বদ্বীপ সৃষ্টি হয়েছে। অন্যদিকে, দক্ষিণ ভারতের মহানদী, গোদাবরী, কৃষ্ণা, কাবেরী প্রভৃতি পূর্ব বাহিনী নদীগুলির মোহনায় ক্ষুদ্রাকৃতি বদ্বীপ সৃষ্টি হলেও নর্মদা, তাপ্তি প্রভৃতি পশ্চিম বাহিনী নদীরগুলির মোহনায় বদ্বীপ সৃষ্টি হয়নি।

১১)উদাহরণ: গঙ্গা, সিন্ধু, ব্রহ্মপুত্র ইত্যাদি হল উত্তর ভারতের নদনদীর উদাহরণ। অন্যদিকে;মহানদী, গোদাবরী, কৃষ্ণা, কাবেরী, নর্মদা, তাপ্তি ইত্যাদি হল দক্ষিণ ভারতের নদনদীর উদাহরণ।

Leave a Comment