আব্রাহাম লিংকন জীবনী | Abraham Lincoln Biography in Bengali

আব্রাহাম লিংকন জীবনী: Gksolve.in আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছে Abraham Lincoln Biography in Bengali. আপনারা যারা আব্রাহাম লিংকন সম্পর্কে জানতে আগ্রহী আব্রাহাম লিংকন এর জীবনী টি পড়ুন ও জ্ঞানভাণ্ডার বৃদ্ধি করুন।

আব্রাহাম লিংকন কে ছিলেন? Who is Abraham Lincoln?

আব্রাহাম লিংকন (১২ ফেব্রুয়ারি ১৮০৯ – ১৫ এপ্রিল ১৮৬৫) একজন মার্কিন রাজনীতিবিদ ও আইনজীবী ছিলেন। তিনি ১৮৬১ সাল থেকে ১৮৬৫ সালে তার হত্যার আগপর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ১৬তম রাষ্ট্রপতি ছিলেন। নৈতিক, সাংস্কৃতিক, সাংবিধানিক এবং রাজনৈতিক সঙ্কট তিনি আমেরিকাকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। তিনি ইউনিয়ন সংরক্ষণ, দাসত্ব বিলোপ, ফেডারেল সরকারকে মজবুত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিকে আধুনিকীকরণে সফল হন।

আব্রাহাম লিংকন জীবনী – Abraham Lincoln Biography in Bengali

নামআব্রাহাম লিংকন
জন্ম12 ফেব্রুয়ারী 1809
পিতাটমাস লিঙ্কন
মাতান্যান্সি হ্যাঙ্কস
জন্মস্থানহজেনভিল, কেনটাকি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
জাতীয়তামার্কিন
পেশারাজনীতিবিদ, আইনজীবী
মৃত্যু15 এপ্রিল 1865 (বয়স 56)

আব্রাহাম লিংকন এর জন্ম: Abraham Lincoln’s Birthday

আব্রাহাম লিংকন 12 ফেব্রুয়ারী 1809 জন্মগ্রহণ করেন।

আব্রাহাম লিংকন এর পিতামাতা ও জন্মস্থান: Abraham Lincoln’s Parents And Birth Place

পৃথিবীর ইতিহাসে যে কয়জন মানবতাবাদী গণতন্ত্রপ্রেমী মহান রাষ্ট্রনায়ক জন্মগ্রহণ করেছেন তাঁদের মধ্যে বিশিষ্টতম হলেন আব্রাহাম লিঙ্কন। আমেরিকার কেন্টাফি প্রদেশের অখ্যাত এক গ্রামের ছুতোর পরিবারে ১৮০৯ খ্রিঃ জন্ম হয় লিঙ্কনের। তাঁর পিতা টমাস লিঙ্কন ছিলেন পেশায় ছুতোর মিস্ত্রী। লেখাপড়া তিনি কিছুই জানতেন না। হাতের কাজ করে কোন রকমে সংসার প্রতিপালন করতেন।

আব্রাহাম লিংকন এর ছোটবেলা: Abraham Lincoln’s Childhood

লিঙ্কনের যখন মাত্র চার বছর বয়স, সেই সময় তাঁর বাবা ইন্ডিয়ানা প্রদেশের অরণ্যময় অঞ্চলে এসে সপরিবারে বাস করতে থাকেন। এখানেই জনবিরল পরিবেশে প্রকৃতির কোলে লিঙ্কনের শৈশব ও কৈশোর অতিবাহিত হয়। অরণ্যের একপ্রান্তে বড় বড় কাঠের গুঁড়ি দিয়ে ঘর বানিয়েছিলেন লিঙ্কনের বাবা। কাঠের কাজ আর শিকার করে কোন প্রকারে সংসার চালাতেন। বাবার সঙ্গে কাজ করে লিঙ্কনও ছেলেবেলা থেকেই হয়ে উঠেছিলেন পরিশ্রমী। কাঠ চেরাই, মাছ ধরা ও চাষের কাজে তিনি বাবাকে সমানভাবে সাহায্য করতেন। ছয় বছর বয়সে লিঙ্কন মাতৃহারা হন।

তারপর থেকে তিনি আর ছোট বোন মিলে বাড়ির কাজকর্ম করতেন। লিঙ্কনের বাবার পূর্বপরিচিত এক মহিলা তিনটি শিশু সস্তান নিয়ে অকালে বিধবা হয়েছিলেন। সংসারে একজন মহিলার প্রয়োজন বিবেচনা করে তিনি সেই মহিলাকেই বিয়ে করে সংসারে নিয়ে এলেন। হাসিখুশি স্বাস্থ্যবতী এই মহিলা ছিলেন যেমন পরিশ্রমী তেমনিই বুদ্ধিমতী। অল্পদিনেই তিনি সংসারের চেহারা ফিরিয়ে নিলেন।

আব্রাহাম লিংকন এর শিক্ষাজীবন: Abraham Lincoln’s Educational Life

লিঙ্কনের বাবা নিজে লেখাপড়া জানতেন না। ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার ব্যাপারেও তাই তাঁর কোন আগ্রহ ছিল না। কিন্তু তার সৎমায়ের উৎসাহ ছিল এই বিষয়ে ৷ সেই অঞ্চলে কিছু শিক্ষিত লোকের চেষ্টায় একটা প্রাথমিক স্কুল খোলা হয়েছিল। সৎমায়ের আগ্রহে লিঙ্কন সেই স্কুলে ভর্তি হলেন। মাত্র একবছর এই স্কুলে পড়াশুনার সুযোগ পেয়েছিলেন লিঙ্কন। তার মধ্যেই পড়াশুনার প্রতি গভীর আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছিল তার মধ্যে। শহরের দোকান থেকে লোকজনদের ধরে বই কিনিয়ে আনতেন তিনি। মাঠে কাজ করতে করতে সেই বই পড়তেন। রাতে কাঠের আগুনের আলোয় বসে শ্লেটে অঙ্ক কষতেন।

কিশোর বয়সে তাঁর প্রিয় বই ছিল বাইবেল— ঘুরে ফিরে অসংখ্যবার তিনি এই পবিত্র গ্রন্থ পাঠ করেছেন। তাঁর জীবনে বাইবেলের প্রভাব ছিল অতীব গভীর। উত্তরকালে তার লেখায় ও বক্তৃতার মধ্যেও এই প্রভাব স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। উনিশ বছর বয়স পর্যন্ত নিজেদের গ্রামের আশপাশের অঞ্চল ছাড়া অন্য কোথাও যান নি লিঙ্কন। এই সময়ে এক ব্যবসায়ীর অধীনে কাজ নিয়ে কিছু পণ্য বিক্রয় করবার জন্য নিউ অর্লিয়েন্স বন্দরে যেতে হয়।

একটি বড় নৌকায় চেপে বন্দরে পৌঁছে এক অদ্ভূত দৃশ্য দেখলেন লিঙ্কন। এক জায়গায় নিগ্রো শিশু নারী পুরুষদের দাস হিসেবে বিক্রি করা হচ্ছিল। নিলাম ডেকে যে সব চেয়ে বেশি দাম দিতে পারছিল তার হাতেই তুলে দেওয়া হচ্ছিল দাসদের। যারা যেতে রাজি হচ্ছে না কিংবা কিছু মাত্র অবাধ্যতা করছে তাদের নির্মমভাবে চাবুক মেরে শায়েস্তা করা হচ্ছিল। এই অমানবিক দৃশ্য আর দাস – ব্যবস্থার রীতি জীবনে প্রথম দেখতে পেলেন লিঙ্কন ! বেদনায় তার মন ভবে উঠল।

আব্রাহাম লিংকন এর কর্ম জীবন: Abraham Lincoln’s Work Life

তিনি সেদিন এতটাই অভিভূত হয়ে পড়েছিলেন যে মনে মনে শপথ নিয়েছিলেন, যদি কোনদিন সুযোগ পান তাহলে এই জঘন্য প্রথার উচ্ছেদের জন্য প্রাণপণ চেষ্টা করবেন। সেবার নিউ অর্লিয়েন্সে পণ্য বিক্রয় করে প্রচুর লাভ করেছিলেন লিঙ্কন। পণ্যের মালিক ব্যবসায়ী খুশি হয়ে লিঙ্কনকে তার নিউ সালেমের গুদামের ম্যানেজারের পদে চাকরিতে নিয়োগ করলেন। কর্মজীবনে প্রবেশ করে অবসর সময়টুকু লিঙ্কন কাজে লাগালেন নানা বিষয়ের বইপত্র পড়াশুনা করে। মধুর ব্যবহারের জন্য এখানে সকলেরই প্রিয় হয়ে উঠেছিলেন তিনি। সেই সুবাদে প্রাদেশিক নির্বাচনের সময় নির্বাচন কেন্দ্রে কাজকর্ম দেখাশুনার দায়িত্ব পান।

নিজের অজ্ঞাতেই এভাবে রাজনীতির জগতের সঙ্গে লিঙ্কনের পরিচয়ের সুযোগ ঘটে। ক্রমে তিনি রাজনীতির প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়েন। সেইকালে নিউসালেমে মুষ্টিমেয় লেখাপড়া জানা মানুষের মধ্যে লিঙ্কন ছিলেন অন্যতম। মধুর ব্যক্তিত্ব, জ্ঞান, স্পষ্টবাদিতা এবং সহযোগিতা মূলক আচরণের জন্য তিনি এখানে অল্প সময়ের মধ্যেই জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। নিউসালেমে এক সরাইখানার মালিক হলেন জেমস রুটলেজ। লিঙ্কনের তিনি ছিলেন সব চেয়ে বড় সমর্থক। স্থানীয় রাজনীতিতে অংশগ্রহণের জন্য তিনিই লিঙ্কনকে প্রথম উৎসাহিত করেন। সরাইখানায় যাতায়াতের সূত্রে জেমসের মেয়ে অ্যানির প্রতি আকৃষ্ট হন লিঙ্কন।

প্রথম পরিচয়েই তিনি মুগ্ধ হয়েছিলেন। কিন্তু কিছুদিন পরে যখন জানতে পারেন অ্যানি এক যুবকের বাগদত্তা, তখন জীবনে প্রথম নারীর সংস্পর্শে এসে আঘাত পেয়েছিলেন লিঙ্কন। তবে অল্পসময়ের মধ্যেই তিনি সে আঘাত সামলে উঠেছিলেন। যে ব্যবসায়ীর অধীনে লিঙ্কন কাজ করতেন, তার ব্যবসা পড়ে এসেছিল। লিঙ্কন চাকরি ছেড়ে দিয়ে একজন সঙ্গীর সঙ্গে ব্যবসা শুরু করলেন। সঙ্গীটির ছিল মদের নেশা ৷ কাজেই অল্পদিনের মধ্যেই ব্যবসা উঠে গেল।

আব্রাহাম লিংকন এর রাজনৈতিক জীবন: Abraham Lincoln’s Political Life

এই সময় কয়েকজন অনুরাগী বন্ধুর উৎসাহে ইলিয়া প্রদেশের প্রাদেশিক নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেছিলেন লিঙ্কন। কিন্তু রাজনৈতিক অভিজ্ঞতার অভাবে নির্বাচনে পরাজিত হতে হয়। নির্বাচনের ব্যর্থতার পর লিঙ্কন নিউসালেমে বাড়ি বাড়ি চিঠিপত্র ও খবরের কাগজ বিলি করার পিওনের চাকরি নিলেন। এই সুযোগটাকে ভাল ভাবেই কাজে লাগিয়েছিলেন তিনি এবং এভাবেই বৃহত্তর জগতের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ তৈরি হয়েছিল। মালিকের বাড়ি পৌঁছে দেবার আগে তিনি কোথাও বসে খবরের কাগজগুলি খুঁটিয়ে পড়ে নিতেন। দিনের বেশিরভাগ সময়টা কাজের মধ্যে এইভাবে কেটে যেতো তার।

রাতে বাড়ি ফিরে বসতেন নিজের বইপত্তর নিয়ে। সমস্ত রকম ব্যস্ততার মধ্যেও নিয়মিত পড়াশুনার কাজে তার কখনো বিঘ্ন ঘটত না। প্রথম বারে ব্যর্থ হলেও ১৮৩৪ খ্রিঃ নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে লিঙ্কন জয় লাভ করলেন। এবারে নির্বাচন প্রতিনিধি হিসাবে তাকে আসতে হল ইলিনয়ে। পরিষদের কাজের অবসরে তিনি লাইব্রেরি থেকে বই এনে পড়াশুনা করতে লাগলেন। এই সময়েই আইন পরীক্ষা পাশ করে আইন ব্যবসা করার সঙ্কল্প তাঁর মনে জাগে। ইতিমধ্যে ইলিনয়ে প্রদেশের রাজধানী স্থানান্তরিত হল স্প্রিংফিন্ডে। ফলে পরিষদ সদস্য হিসাবে কাজকর্মের প্রয়োজনে লিঙ্কনকেও যেতে হল সেখানে। আইন বিষয়ে পড়াশুনা করে পরীক্ষা দিলেন লিঙ্গন।

পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ১৮৩৬ খ্রিঃ আইন ব্যবসায় আরম্ভ করলেন। অসাধারণ মেধা ও কর্মকুশলতার গুণে আইনজীবী হিসেবে অল্পসময়ের মধ্যেই খ্যাতি অর্জন করলেন লিঙ্কন। তার বলিষ্ঠ যুক্তি ও জ্ঞানের কাছে প্রতিপক্ষকে সহজেই হার স্বীকার করতে হত। লিঙ্কন স্বভাবতই ছিলেন ন্যায়ের পক্ষপাতী। কোন অবস্থাতেই তিনি অন্যায়কে মেনে নিতেন না। সেইকারণে কোন মিথ্যা মামলা হাতে এলে সঙ্গে সঙ্গে তা ফিরিয়ে দিতেন। আইন ব্যবসায় প্রতিষ্ঠালাভের সঙ্গে সঙ্গে লিঙ্কন রাজনীতির সঙ্গেও ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত হয়ে পড়লেন। ১৮৩৮, ১৮৪০ খ্রিঃ দুবার তিনি ব্যবস্থাপক সভার সদস্য নির্বাচিত হলেন।

ব্যবস্থাপক সভার এক সদস্য ছিলেন স্টিফেন ডগলাস। ভাগ্যচক্রে এক নারীকে কেন্দ্র করে তার সঙ্গে এসময়ে লিঙ্কনের যে সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল তার পরিণতি গড়িয়েছিল উত্তরকাল পর্যন্ত, ডগলাস হয়ে উঠেছিলেন লিঙ্কনের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী। এক সুন্দরী তরুণী, তার নাম মেরি টড, তাঁর দিদিমার বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন। চটপটে স্বভাব ও আকর্ষণীয় কথাবার্তা শুনে যুবকরা তার প্রতি সহজেই আকৃষ্ট হয়ে পড়ল। একদিন এক নাচের আসরে গেছেন লিঙ্কন আর ডগলাস। মেরিও উপস্থিত ছিলেন সেই আসরে। ডগলাসের আভিজাত্যপূর্ণ ব্যবহার ও ধোপদুরস্ত পোশাক সত্ত্বেও রুক্ষ ঢ্যাঙা চেহারার ঢিলেঢালা পোশাকের লিঙ্কনের প্রতিই আকৃষ্ট হলেন মেরি। আলাপ পরিচয় কিছুটা গভীর হলে লিঙ্কন বিবাহের প্রস্তাব দেন।

প্রথমে অমত করলেও শেষ পর্যন্ত ১৮৪২ খ্রিঃ লিঙ্কনকেই মেরি বিবাহ করলেন। বলাবাহুল্য, লিঙ্কনের বন্ধুও সহকর্মীদের মধ্যে একমাত্র ডগলাস এই বিয়েতে খুশি হতে পারেননি। বিয়ের পর লিঙ্কন উইলিয়ম হানডন নামে এক তরুণ আইনজীবীর সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে আইন ব্যবসা শুরু করলেন। কিছুদিনের মধ্যেই দুজনের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। তাদের এই সম্পর্ক বজায় ছিল আমৃত্যু। পরবর্তীকালে হানডন লিঙ্কনের জীবনী রচনা করেন। স্ত্রী মেরীর তাগিদে একসময় স্প্রিংফিল্ডের আইন ব্যবসায় ছেড়ে লিঙ্কন ওয়াশিংটনে এসে পাকাপাকিভাবে বসবাস আরম্ভ করলেন।

মেরীর প্রবল ইচ্ছা লিঙ্কন কেন্দ্রীয় ব্যবস্থাপক সভার সদস্য হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করুন। সেই মত লিঙ্কন পুরোপুরিভাবে রাজনীতিতে আত্মনিয়োগ করলেন এবং অল্পসময়ের মধ্যেই অন্যতম রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করলেন। দলীয় মনোনয়ন পেয়ে কেন্দ্রীয় ব্যবস্থাপক সভার নির্বাচনে যথাসময়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে লিঙ্কন ১৮৪৭ খ্রিঃ ওয়াশিংটন পার্লামেন্টের সদস্য নির্বাচিত হলেন। কিশোর বয়সে নিউ অর্লিয়েন্সের বন্দরে দেখা দাস ব্যবসায়ীদের বাজারের দৃশ্য লিঙ্কনের মনে জাগরুক ছিল। সংসদ সদস্য হবার পর প্রথমেই তার দৃষ্টি পড়ল অনুরূপ একটি দৃশ্যের প্রতি।

ওয়াশিংটনে রাষ্ট্রপতির প্রাসাদ হোয়াইট হাউসের পাশেই গড়ে উঠেছিল নিগ্রোদাসদের একটি খোঁয়াড়। বিভিন্ন স্থান থেকে সংগ্রহ করা নিগ্রোদের এই খোঁয়াড় থেকেই দক্ষিণের বাজারে বিক্রির জন্য পাঠানো হত। আমেরিকায় দাস ব্যবসা শুরু হয়েছিল ষোড়শ শতাব্দীতে কয়েকজন ওলন্দাজ বণিকের মাধ্যমে। তারা আফ্রিকা থেকে কুড়িজন নিগ্রোকে ধরে এনে জেমস টাউনে বিক্রি করে। আমেরিকায় তখন সবে উপনিবেশ গড়ে উঠতে শুরু করেছে। বিভিন্ন কাজের জন্য শ্রমিকের প্রচন্ড চাহিদা। এই সুযোগকে কাজে লাগাল ইউরোপের একদল অর্থলোলুপ ব্যবসায়ী।

তারা আফ্রিকা থেকে দলে দলে নারী পুরুষ ধরে এনে আমেরিকায় বিক্রি করতে আরম্ভ করল। লাভের লোভে এই ভাবেই একসময় ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছিল নিগ্রো ক্রীতদাসের ব্যবসা। আমেরিকার সমগ্র দক্ষিণ অঞ্চল জুড়েই ছিল নিগ্রো ক্রীতদাসের চাহিদা। লিঙ্কন যেই সময়ে ওয়াশিংটন পার্লামেন্টের সদস্য নির্বাচিত হলেন সেই সময় পর্যন্ত আমেরিকায় নিগ্রো ক্রীতদাসের সংখ্যা ছিল কুড়ি লক্ষের কাছাকাছি। স্বাধীনতা ঘোষণার পরে দাস ব্যবসায়ের বিরুদ্ধে আমেরিকার বিভিন্ন স্থানে জনমত গড়ে উঠেছিল।

১৮০৮ খ্রিঃ ক্রীতদাস ব্যবসা নিষিদ্ধ বলে ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু এসব সত্ত্বেও দাস ব্যবসা টিকে ছিল। যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চলে ব্যাপকভাবে তুলো উৎপাদন হত। ইংলন্ডে শিল্প বিপ্লবের ফলে যখন নতুন নতুন কাপড়ের কল তৈরি হতে লাগল, আমেরিকার তুলো রপ্তানি বেড়ে গেল। ফলে তুলো উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য দক্ষিণাঞ্চলে শ্রমিকের প্রয়োজন আগের তুলনায় বেড়ে গেল। অর্থনৈতিক সুবিধার জন্যই স্বাধীনতা লাভের সময় থেকেই দক্ষিণাঞ্চলের অধিকাংশ লোক ছিল ক্রীতদাস প্রথার প্রবল সমর্থক। লিঙ্কন মনেপ্রাণে ছিলেন দাসপ্রথার বিরোধী।

তিনি পার্লামেন্টের সভায় কলম্বিয়া প্রদেশে দাস ব্যবসা বন্ধ করবার জন্য একটি বিল উত্থাপন করলেন। কিন্তু সংখ্যাগরিষ্ঠের বিরোধিতায় সেই বিল অগ্রাহ্য হল। এরপর রাজনৈতিক জগৎ সম্বন্ধে বিতৃষ্ণ হয়ে উঠলেন লিঙ্কন। তিনি স্প্রিংফিল্ডে এসে আবার আইন ব্যবসয় আরম্ভ করলেন। রাজনীতিতে ফিরে যাবার ইচ্ছা হারিয়ে ফেললেন তিনি। কিন্তু বেশিদিন তিনি রাজনীতির অঙ্গন থেকে দূরে সরে থাকতে পারলেন না। নিগ্রো ক্রীতদাসদের প্রতি অত্যাচার অবিচার দেখে বিচলিত হয়ে তিনি এই অমানবিক ব্যবসার বিরুদ্ধে সরব হয়ে উঠলেন।

দৃঢ়স্বরে তিনি এই অভিমত প্রকাশ করলেন যে দেশের অর্ধেক মানুষ যখন ক্রীতদাস তখন স্বাধীনতা এক নির্মম রসিকতার নামান্তর। কোন জাতি এভাবে বেঁচে থাকতে পারে না। সংগঠিত ভাবে প্রতিবাদ জানাবার উদ্দেশ্যে লিঙ্কন নিজের উদ্যোগে রিপাবলিক পার্টি নামে নতুন এক দল গঠন করলেন। পার্টির সংগঠক হিসাবে তিনি দলের রাজনৈতিক আদর্শের কথা যুক্তিপূর্ণ বলিষ্ঠ ভাষায় দেশবাসীর কাছে ব্যাখ্যা করলেন। এই সময় থেকেই লিঙ্কনের নাম চর্তুদিকে ছড়িয়ে পড়ল। ইতিমধ্যে দক্ষিণাঞ্চলের দেশগুলি দাস প্রথার সমর্থনের প্রশ্ন তুলে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিচ্ছিন্ন হবার দাবি তুলল।

ডেমোক্রেটিক পার্টির সদস্য ডগলাস দাসপ্রথার সমর্থনে সোচ্চার হলেন। লিঙ্কন তীব্র ভাষায় তার প্রতিবাদ জানালেন। এইভাবে যৌবনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা আবার দেশের রাজনৈতিক ক্ষেত্রে আত্মপ্রকাশ করল। লিঙ্কন ও ডগলাসের বিতর্ক বাদানুবাদ দেশ জুড়ে আলোড়ন তুলল। কিন্তু দুজনেই সমান বাগ্মী। তবে লিঙ্কনের বক্তব্যে থাকত নৈতিকতা, আদর্শবোধ ও দেশপ্রেম। যুক্তির সঙ্গে আবেগ। সহজেই তাঁর বক্তব্য মানুষের হৃদয় স্পর্শ করত। লিঙ্কন দক্ষিণাঞ্চলের দাবি নস্যাৎ করে ঘোষণা করলেন, আমেরিকা এক এবং ঐক্যবদ্ধ থাকবে তাতে কোন সন্দেহ নেই।

এরপর রিপাবলিকান দলের হয়ে লিঙ্কন রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচন প্রার্থী হলেন। আর ডেমোক্রেটিক দলের হয়ে প্রার্থী হলেন ডগলাস। নির্বাচনে রাষ্ট্রের নেতৃত্বের দায়িত্ব জনগণ লিঙ্কনের হাতেই তুলে দিল। লিঙ্কন নির্বাচনে জিতলেন। ডগলাস হেরে গেলেন। লিঙ্কন হলেন আমেরিকার ১৬ তম প্রেসিডেন্ট। ১৮৬১ খ্রিঃ লিঙ্কন সস্ত্রীক স্প্রিংফিল্ড ছেড়ে ওয়াশিংটনে চলে এলেন। মার্চ মাসের ৪ তারিখে রাষ্ট্রপতি হিসেবে তিনি শপথ নিলেন। সেদিনই তিনি ঘোষণা করলেন, দেশ থেকে দাসপ্রথা উৎখাত করতে হবে। কিন্তু কোন অবস্থাতেই দেশ বিভক্ত হবে না। দক্ষিণের রাষ্ট্রগুলির টনক নড়ল। তারার বুঝতে পারল এবারে দক্ষিণের অর্থনীতির ওপর চাপ সৃষ্টি হবে।

প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই সাউথ ক্যারোলিনার নেতৃত্বে আলবামা, ফ্লোরিডা, মিসিসিপি, লুসিয়ানা, টেক্সাস ও জর্জিয়া যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে আলাদা এক যুক্তরাষ্ট্র গঠিত হল। এই নবঘোষিত যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হলেন জেফারসন ডেভিস। বাধ্য হয়েই দেশকে অখন্ডিত রাখার জন্য লিঙ্কন দক্ষিণের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করলেন। শুরু হয়ে গেল আমেরিকার রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধ। এই যুদ্ধের প্রথম লক্ষ ছিল ইউনিয়নের রক্ষা। দ্বিতীয় হল দাসপ্রথা উচ্ছেদ। কিছুদিন যুদ্ধ চলার পর রাজনৈতিক দলাদলির সৃষ্টি হয়ে গেল। চূড়ান্ত বেসামাল অবস্থার মধ্যেও দৃঢ় হাতে হাল ধরে রইলেন লিঙ্কন।

তারপর ১৮৬৩ খ্রিঃ ১ লা জানুয়ারী চূড়ান্তভাবে ক্রীতদাসদের মুক্তি ঘোষণা করে আইনত দাসপ্রথার অবসান ঘটালেন তিনি। এরপর লিঙ্কন দেশের উত্তর অঞ্চলের সৈন্যবাহিনীর দায়িত্ব অর্পণ করলেন গ্র্যান্ট নামে এক প্রাক্তন ক্যাপ্টেনের হাতে। গ্র্যান্টের লৌহকঠিন দৃঢ়তা ও সাহসিকতা মুগ্ধ করেছিল তাকে। গ্র্যান্ট অল্প দিনের মধ্যেই ডোনেলসন দুর্গের অধিকার করায়ত্ত করে ঝটিকা আক্রমণে দক্ষিণের কয়েকটি শহর দখল করে নেন। অবশেষে দক্ষিণের দুর্ধর্ষ সেনাপতি লীকে পরাজিত করে একের পর এক শহর দখল করে নিলেন। লী পালিয়ে গিয়ে আশ্রয় নিলেন রীচমন্ড শহরে। আমেরিকার গৃহযুদ্ধ চলেছিল দীর্ঘ পাঁচ বছর।

যুদ্ধ শেষ হলে লী আত্মসম্পর্ণ করেন। লিঙ্কন সেনাবাহিনীর সঙ্গে রীচমন্ডে এসেছিলেন। এখানে নিগ্রোদের সমাবেশে তিনি উদাত্ত কণ্ঠে ঘোষণা করলেন “আমার দুঃখী বন্ধুরা, তোমরা সকলে মুক্ত, বাতাসের মত মুক্ত। ‘দাস’ এই নাম তোমাদের আর কখনো নিতে হবে না। স্বাধীনতা তোমাদের জন্মগত অধিকার।” ওয়াশিংটনে ফিরে এলে শত শত মানুষ তাকে অভিনন্দন জানিয়ে সংবর্ধিত করল।

আব্রাহাম লিংকন এর মৃত্যু: Abraham Lincoln’s Death

মানুষকে মানুষের জন্মগত অধিকার ফিরিয়ে দেবার দীর্ঘ দশবছরের সংগ্রাম এভাবেই সম্পূর্ণ করে অবশেষে এক দক্ষিণী গুপ্তঘাতকের গুলিতে প্রাণ বিসর্জন দেন মানবতার অবিসংবাদী পূজারী আব্রাহাম লিঙ্কন।

Leave a Comment