অ্যাকুইফার ও অ্যাকুইক্লুডের মধ্যে পার্থক্য

অ্যাকুইফার ও অ্যাকুইক্লুডের মধ্যে পার্থক্য: ভৌম জল সম্পর্কিত আলোচনায় দুটি গুরুত্বপূর্ণ ধারনা হলো অ্যাকুইফার ও অ্যাকুইক্লুড। এখানে অ্যাকুইফার ও অ্যাকুইক্লুডের মধ্যে পার্থক্য গুলি আলোচনাা করা হল। 

অ্যাকুইফার ও অ্যাকুইক্লুডের মধ্যে পার্থক্য 

1) সংজ্ঞা

মাটির নিচে জলবহনকারী স্তরকে অ্যাকুইফার বলে। 

মাটির নিচে যে শিলা জল ধারনে সক্ষম কিন্তু পরিবহনে অক্ষম তাদের অ্যাকুইক্লুড বলে। 

2) উদাহরণ 

অ্যাকুইফারের উদাহরণ হল বেলে পাথর ও চুনাপাথর। 

অ্যাকুইক্লুডের উদাহরণ হল কাদা পাথর। 

3) প্রকৃতি

অ্যাকুইফার একপ্রকার প্রবেশ্য ও সচ্ছিদ্র শিলাস্তর।

অ্যাকুইক্লুড প্রকৃতি গত দিক থেকে অপ্রবেশ্য শিলা কিন্তু সচ্ছিদ্র।

4) অবস্থান 

অ্যাকুইফারের নিচে সবসময় অপ্রবেশ্য শিলা অবস্থান করে। 

অ্যাকুইক্লুড প্রবেশ্য শিলা স্তরের নিচে প্রবেশ্য শিলা স্তর কে বেষ্টন করে অবস্থান করে। 

5) ভৌমজল ভান্ডার

অ্যাকুইফার কে কেন্দ্র করেই ভৌমজল ভান্ডার গড়ে ওঠে। 

অ্যাকুইক্লুডে খুব সামান্য পরিমাণ জল থাকে বলে  ভৌমজল ভান্ডার গড়ে ওঠে না এবং প্রবেশ্যতা কম বলে ভৌমজল ভান্ডার গড়ে তুলতে ও সাহায্য করে না।

6) জল সরবরাহ

অ্যাকুইফার থেকেই আমরা সারা বছর ধরে কূপ ও নলকূপের মাধ্যমে জল পেয়ে থাকি। 

অ্যাকুইক্লুড থেকে কূপ ও নলকূপের জল সরবরাহ হয় না। 

Leave a Comment