ভারতের পূর্ব ও পশ্চিম উপকূলের সমভূমির মধ্যে পার্থক্য – পশ্চিম উপকূল ও পূর্ব উপকূলের পার্থক্য লেখ?

ভারতের পূর্ব ও পশ্চিম উপকূলের সমভূমির মধ্যে পার্থক্য – পশ্চিম উপকূল ও পূর্ব উপকূলের পার্থক্য লেখ?: মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের জন্য একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হল ভারতের পূর্ব ও পশ্চিম উপকূলের সমভূমির মধ্যে পার্থক্য বা ভারতের পূর্ব ও পশ্চিম উপকূলের মধ্যে পার্থক্য। এই প্রশ্ন টি এখানে সহজ সরল ভাষায় আলোচনা করা হল। আশা করি ছাত্রছাত্রীদের সহযোগিতায় আসবে।

 1) অবস্থান

পূর্ব উপকূলের সমভূমি উপদ্বীপীয় ভারতের উড়িষ্যা, অন্ধ্রপ্রদেশ ও তামিলনাড়ু উপকূল বরাবর অবস্থান করছে।

পশ্চিম উপকূলীয় সমভূমি গুজরাট, মহারাষ্ট্র, গোয়া, কর্ণাটক, কেরালা এই উপকূলীয় সমভূমির অন্তর্গত। 

2) বিস্তার 

পূর্ব উপকূল উড়িষ্যার সুবর্ণরেখা নদী থেকে শুরু করে দক্ষিনে তামিলনাড়ু কন্যাকুমারী পর্যন্ত প্রায় 1500 কিমি পর্যন্ত বিস্তৃত। 

পশ্চিম উপকূলীয় সমভূমি গুজরাটের কচ্ছের রণ থেকে শুরু করে দক্ষিণে কন্যাকুমারী পর্যন্ত প্রায় 1600 কিমি বিস্তৃত। 

3) প্রশস্ত 

পূর্ব উপকূল পূর্ব-পশ্চিমে প্রায় 80-100 কিলোমিটার চওড়া। 

পশ্চিম উপকূলের সমভূমি প্রায় 50-65 কিমি প্রশস্ত বিশিষ্ট হয়। 

4) প্রকৃতি

পূর্ব উপকূল একপ্রকার সঞ্চয় জনিত উত্থিত উপকূল। 

পশ্চিম উপকূল একপ্রকার চ্যুতি গঠিত নিমজ্জিত উপকূল। 

5) ঢাল 

পূর্ব উপকূলের সমভূমি মৃদু ঢালে সমুদ্রের দিকে নেমে গিয়েছে। 

পশ্চিম উপকূলের ঢাল অনেক টাই বেশি, এটি খাড়া ভাবে আরব সাগরের দিকে নেমে গেছে।

6) নদনদী

পূর্ব উপকূলের নদী গুলি অধিক দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট হওয়ায় মোহনা অঞ্চলে সঞ্চয় কার্যের ফলে বদ্বীপ গঠিত হয়। 

পশ্চিম উপকূলের নদী গুলি স্বল্প দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট ও খরস্রোতা প্রকৃতির। তাই এই নদী গুলিতে বদ্বীপ দেখা যায় না। 

7) মৌসুমী বায়ুর প্রভাব 

ভারতের পূর্ব উপকূলে দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু ও প্রত্যাবর্তন কারী উত্তর – পূর্ব মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে বছরে দুবার বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে। 

পশ্চিম উপকূলে কেবলমাত্র দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে গ্রীষ্মকালে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে। 

8) উচ্চতা 

পূর্ব উপকূল সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে 200 মিটারের কম উচ্চতা বিশিষ্ট হয়ে থাকে। 

পশ্চিম উপকূল সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে প্রায় 150 থেকে 300 কিমি উচু হয়। 

Leave a Comment